Author Picture

চৌধুরী রওশন ইসলামের একগুচ্ছ কবিতা

চৌধুরী রওশন ইসলাম

আমি তো আছি
.
এমন কঠোর রোদ দেখে তোর ভয় কি বালা ?
আমি তো আছি ছায়া বিলিয়ে
স্নিগ্ধ সবুজ বৃক্ষ হয়ে।

ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি এলে পালাস কেন ?
আমি তো আছি ছাতার মতন
বুকে করে আগলে রাখার।

কষ্ট পেলে লুকাস কেন ?
আমি তো আছি সুখের মতন;
হাত বাড়ালেই ছুঁতে পারিস।

গোপন ব্যথায় কাঁদিস কেন ?
আমি তো আছি সখার মতন;
ইচ্ছে হলেই ভুলতে পারিস।


শিকড়ের ব্যথা
.
এ-গাঁয়ের সখা দূর-গাঁয়ে গেছে চলে;
মনে তার এ-গাঁয়ের স্মৃতিটুকু দোলে।

নব-গাঁয়ে গিয়ে হারিয়েছে নিজ নাম,
হারিয়েছে ছোট জীবনের বড় দাম,
হারিয়েছে চেনা নর-নারী, পথ-ঘাট,
চেনা খাল, চেনা নদী-পাশে চেনা মাঠ,
হারিয়েছে কিশোরী ইলার চেনা-মুখ,
হারিয়েছে চোরা-চাহনির তীব্র সুখ।

একই চাঁদ ওঠে একই সে-আকাশে;
তবু ফেলে-আসা গাঁও মনে তার ভাসে।
বান-ডাকা সে-বৃষ্টির অঝোর ধারায়
স্মৃতির গেঁয়ো-মাঠে আজও সে হারায়।
আযান আর কাঁসর-ঘণ্টা-বাজা সাঁঝে
রোজ তার বুকে শিকড়ের ব্যথা বাজে।


মহাজন
.
রাত জেগে কার সাথে এত কথা বলো;
এক চাবি দিয়ে তুমি কত তালা খোলো ?

তারগুলো সব ছিঁড়ে গেছে, সুর ওঠে না আর;
আঙুলগুলো বৃথাই কাঁদে, কান্নাটুকুই সার।

তোরে ভুলেই গেছি, কিচ্ছু নেই আর মনে;
ভাল্লাগে না অশ্রুর অপচয় সঙ্গোপনে।

মহাজন, অনেক ভারী ব্যথার পাথর
লুকিয়ে আছে অন্ধকারে বুকের ভিতর।
কেউ দেখে না, না গো, পাথরখানির রঙ;
ভেবেছিলে ওটা বুঝি চিরকালের ঢঙ।


প্রেম মানে
.
— প্রেম মানে যুদ্ধে নামা;
এক মানুষের লক্ষ হাতের হাটুরে কিল হজম করা।
— প্রেম মানে শান্তি-চুক্তি;
দুই মানুষের একটি স্বপ্নে বিভোর হওয়া।

— প্রেম মানেই চোরাবালির চোরা-খেলা খেলতে খেলতে
নিজের ভারেই ধীরে ধীরে ডুবতে থাকা।
— প্রেম মানে ডুবন্ত এক অসহায়ের সহায় পাওয়া;
ডুবতে ডুবতে ভেসে ওঠার মন্ত্র শেখা।

— প্রেম মানেই হিরোশিমা-নাগাসাকি;
সাজানো শহর এক নিমেষে ধ্বংস হওয়া।
— প্রেম মানে মরু্দ্যান।
বুক-ফাটা জলতেষ্টায় নয়ন-মোহন ঝর্ণা-ধারা।
— প্রেম মানে আমার প্রতি একটি মানুষ কপট হওয়া।
— প্রেম মানে তোমার প্রতি একটি মানুষ সুহৃদ হওয়া।

— প্রেম মানে নিজের গায়ে নিজের হাতে আগুন জ্বালা;
হৃদয়-পোড়া গন্ধ শুঁকে বাকিটা জীবন কাটিয়ে দেওয়া।
— প্রেম মানে অগ্নিকুণ্ডে পুড়তে পুড়তে ফিনিক্স হয়ে উড়তে শেখা;
শুষ্ক এবং পোড়া-হৃদয় অমৃত ঢেলে অমর করা।


বৃষ্টি
.
বৃষ্টি রে, আল্লার দোহাই লাগে— আর ঝরিস না;
বুকটা কেমন ঝাঝরা হয়ে যায়।
স্মৃতির কৈ মাছগুলো কানে হেঁটে হেঁটে ডাঙায় উঠে আসে।
বৃষ্টি রে, আল্লার দোহাই লাগে— আর ঝরিস না।


জয়-পরাজয়
.
তুমি জিতে গেলে আমি ঠকে যাই— আমার পরাজয় এত তুচ্ছ নয়।
চিরকাল তোমাকে জিতিয়ে ঠকানোতেই আমার জয়।
তুমি জিতবে— আর তাতেই পরাজয়ের গ্লানি-সুধা আকণ্ঠ পান করে
বুঝে নেবে, রাতের আকাশে একটি তারা অকালে গেছে ঝরে।

কত কিছু বোঝ, মোহিনী— শুধু বোঝ না,
অহঙ্কারের আকাশে সুখ পাখি ওড়ে না।

আরো পড়তে পারেন

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

বিপিন বিশ্বাসের একগুচ্ছ কবিতা

শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি আড়ালে যার মহাজাগতিক রশ্মির চারণভূমি প্রতিবন্ধকতাকে পাশকাটিয়ে নিমগ্ন বিশ্বের স্বরূপ দেখি ধ্যানের স্তরে। মায়ার কায়া ঝেড়ে ফেলে সত্যকে চিনি আপন করে জ্যোতির্ময় জেগে আছে দীপ্ত শিখার আপন জলে । মূল্যবোধের সলতে টাকে মারতে চাই না দিন-দুপুরে অন্ধকারে আলোক রেখা সদাই খোঁজি হৃদ মাঝারে।   জীবনের ধর্ম এই জীবন মা….

error: Content is protected !!