Author Picture

জমির হোসেনের তিনটি কবিতা

জমির হোসেন

সর্বনাশী

তুমি অনেক বড় সর্বনাশী
বুঝতে হল অনেক দেরি
ভেবে তাই মরি আমি
জীবনটা করলে পরবাসী।

কথা ছিল সঙ্গী হবে
সুন্দর একটা ঘর সাজাবে
জনম জনম কাছে রবে
কখনও দিবেনা দূরে ঠেলে
সুখের তরী বাইবো দুজন
কষ্ট ভুলে বলবো ভালোবাসি।

আধাঁর বলে তুমি আলো
মানেনি মন তখনও কালো
শেষ হল সব স্বপ্ন
মনকে ঘিরে শুধু বিষন্ন
জানি আমি জানবে মানুষী।

 

অনন্য মায়াবী তুমি

তোমাকে দেখেই মনে হল
কোন পদ্মা গোলাপের সামনে দাঁড়িয়ে
তোমার ছবিতে অবাক পানে তাকিয়ে নিস্তব্ধ
কোন ভাবেই দৃষ্টি সরাতে পারিনি
অপরুপ মায়বী তোমাকে দেখে।
স্রষ্টার সৃষ্টি তুমি লাক্সময়ী
একবার তা নীরবে ভেবো
কারো দৃষ্টি যেন না পড়ে তোমার পানে
পৃথিবী হারাবে সে নিজেকে
অনন্য গঠন মুখমন্ডল
ঠোঁটের এক কোনে লুকিয়ে মিষ্টি হাসি
ধবধবে সাদা মায়াবী চোখের মনি।

মুখের ভাষা বলে চোখ দুটি
তোমার রূপের কাছে যেন
রাতের আধাঁর হার মানে
বিষাদের মন তোমাকে দেখলে
শীতল হবে অবকাশ নেই তাতে
অনন্য মায়াবী তুমি।

 

হঠাৎ বৃষ্টি থেমে গেল

সেদিন হঠাৎ বৃষ্টি
মন বলছে এই বুঝি এলো
অবক পানে জানালার ফাঁকে
তপোলোক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রই।

রিনিঝিনি বৃষ্টির ফোঁটা
উঁচু তলা থেকে নিচুতলা গড়িয়ে
জানি এ পথধরে সে আসবে
বিষ্ময়কর এতটুকু অধৈর্য হইনি
পাগল মন বলছে আসবে
যে পথে দৃষ্টি অবধারিত।

হালকা পাতলা হলদে সেলোয়ারে
লম্বা ওড়নায় গাঁ ঢেকে সে এলো
আমার চোখ তার চোখে
লজ্জায় মুখ লুকালো।
উতলা মনের আবেগ বাড়ে
বৃষ্টির পানি মাথা গড়িয়ে
চোখ থেকে বুকের উপর
ফোঁটাফোঁটা জল পড়ল
বেশ দারুণ লেগেছে
মনটা  ছুঁতে চাইল
লোক লজ্জার ভয় এলো
হঠাৎ বৃষ্টি থেমে গেল
চোখের ইশারায় বিদায় নিল
নিমিষে হৃদয় আনমনে ।

আরো পড়তে পারেন

আরণ্যক শামছ-এর একগুচ্ছ কবিতা

প্রান্তিক কবি আমি এক নির্জনে পড়ে থাকা প্রান্তিক কবি। যেন সমাজতাত্ত্বিক সীমারেখার শেষপ্রান্তে ঝুলে থাকা এক পরিত্যাক্ত পলিথিন ব্যাগ। এখানে লুকিয়ে রেখেছি ক্ষুধা, দারিদ্র্য, ভগ্নস্বাস্থ্য, অসাম্য, অশিক্ষা ও মানুষের ছলাকলার ইতিহাস। আমি গাণিতিক ধারণার বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা এক অনস্তিত্বের অপ্রয়োজনীয় সংযুক্তি। তবে জিপসিদের মত আমিও দাঙ্গা বাঁধিয়ে দিতে পারি। আমিও মাটির ঘ্রাণ থেকে জেনে নিতে….

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

error: Content is protected !!