Author Picture

পূর্ণিয়া সামিয়া’র একগুচ্ছ কবিতা

পূর্ণিয়া সামিয়া

ক্যাপিচিনো সন্ধ্যা

ভাষা কি শুধু কথাতেই থাকে
ভাষা থাকে মুহুর্ত জুড়ে এপার ওপারে
ক্যাপিচিনো আর সিগারেটের ধোঁয়ায়

ঝড় কেবল মেঘ করলেই হয়না
ওই পাঁচ মিনিটের আবদারেও
ভেঙে চূড়ে ঝড় আসে

কে বলেছে টাকার ব্যাগ
আর সোনা দানাই কেবল ছিনতাই হয়!
চুমুর কৌটোও ছিনতাই করে নেয়
আবছায়ে কেউ….

 

জলের ভুল

চুমু খেও ঠোঁট ফুলে গেলে কেটে গেলে
লুকিয়ে রাখা যাবে
কিংবা বানিয়ে বানিয়ে মিথ্যা গল্পও বলা যাবে
কেউ একজন ক্লাস টেনে শিখিয়েছিল
প্রেমে মিথ্যা বললে পাপ নেই বরং পুণ্য হয়
আর কিছু যাই হোক গোপন প্রেমে
অন্তরে আঁচর কেটো অগনিত তাও দোষ নেই
সে গোপন একান্ত আপন
তবে ওই যে জলের ফোঁটা!
সে ক্ষেত্রে কিছুটা সাবধানে থাকা ভালো
প্রেম বুঝি তখন কাঁটা হয়ে খোঁচায়
না থাকে গোপন
আর না হয় আপন
মনে থাকবে?

 

ইচ্ছে ডানা

ইচ্ছে আমার সুতো ছেঁড়ে আপন ডানা মেলি
ইচ্ছে আমার জানলা ভেঙে পাড়াই অলিগোলি
তেলের বাটি উল্টে ফেলে মনের পাটি গড়ি
ঢেউয়ের ঢেউয়ে সাঁতার কেটে ভাঙি পায়ের বেড়ি
একলা আমার আকাশ জুড়ে একলা মেঘের আবাস
মন ময়ুরের পেখম মেলা মাতাল হাওয়ার সুবাস
ছড়িয়ে বেড়াই চাঁদের হাসি রুপোর ছটার জোড়ে
ইচ্ছে আমার প্রদীপ জ্বালি সূর্য ডোবা ভোরে।।

 

এই একা ভালো থাকা

উড়ে গেলো যে ফড়িং
তারে
উড়তে দেখো, ঘুরতে দেখো
বসতে দেখো কোনো ডালে

সময়ের মত দুঃখও বসে থাকেনা
নতুন পাখির শিস দেয় আবার
প্রজাপতির রং এও মন দোলে

জীবনের গল্প যতটুকুই হোক
পড়তে হয় দাড়ি, কমা সহ
কখন কোথায় শিহরণ আছে
তা কেবল সময়ই বলে….

 

মন্দবাসার মানুষ

ওই মন্দবাসার মানুষ
স্বপ্ন গুলো টুকরো করে
উড়ালি কেন ফানুস?

কি পেয়েছিস মগের মুলুক?
যেমন খুশি তেমন করে
তাস পিটিয়ে যাবি!

খামখেয়ালির রং মেশালি
সাতসাগরে নাউ ভাসালি
কাব্য কথায় ঘুম ভাঙালি
কেমনে ছাড়া পাবি?

কামড়ে দেবো খুবলে খাবো
খামচে চিঁড়ে দেবো
তোর ওই স্মৃতির বাক্সটারে

পারলে এসে ধুয়ে মুছে
আয় দিয়ে যা সবটা নতুন করে

আরো পড়তে পারেন

আরণ্যক শামছ-এর একগুচ্ছ কবিতা

প্রান্তিক কবি আমি এক নির্জনে পড়ে থাকা প্রান্তিক কবি। যেন সমাজতাত্ত্বিক সীমারেখার শেষপ্রান্তে ঝুলে থাকা এক পরিত্যাক্ত পলিথিন ব্যাগ। এখানে লুকিয়ে রেখেছি ক্ষুধা, দারিদ্র্য, ভগ্নস্বাস্থ্য, অসাম্য, অশিক্ষা ও মানুষের ছলাকলার ইতিহাস। আমি গাণিতিক ধারণার বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা এক অনস্তিত্বের অপ্রয়োজনীয় সংযুক্তি। তবে জিপসিদের মত আমিও দাঙ্গা বাঁধিয়ে দিতে পারি। আমিও মাটির ঘ্রাণ থেকে জেনে নিতে….

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

error: Content is protected !!