Author Picture

আতিদ তূর্য’র একগুচ্ছ কবিতা

আতিদ তূর্য

চুরি

দিনেদুপুরে হারিয়ে যাচ্ছে সব।
উঠোনে ফেলে রাখা সাইকেলও
হারিয়ে গেলো এমন জোয়ারে৷
রোদে দেওয়া আচার—
শুকোতে দেওয়া কাপড়
হচ্ছে গায়েব চোখের পলকে।
বাড়িতে জম্বির মতো ঘুরছি আমরা
মায়ের হাত-কান-গলা খালি।
পুলিশরা সব করে কি?— দাদু বলে।
রোদমাথায় বাবা গেছেন ভোটাভুটিতে
চুরি না-কি হয়েছে সেখানেও।

 

বানরনাচন

ঐতিহ্যবাহী বানরখেলা হালে পানি পেয়েছে।
রসিক মহাজন গদিতে আসীন
এক হাতে ডুগডুগি, এক হাতে লাঠি
বানর শ্বশুরবাড়ি যায় বগলে নিয়ে ছাতি।
বানর বসনে ভদ্দর জামা
দূর থেকে অবিকল কোনো সাহেব।
বানর ঘোল বেচতে যায় হাটে
বানর নায়কের পাট করে,
লাঠি বাগিয়ে মুঠোয়—বক্তৃতার ভান ধরে
বানর চোর-পুলিশ খেলে ভালো;
বানরমনিব কালো কৌতুকে পটু।
কলা খাওয়ার আগে বানর শেষ খেলা দেখায়—
নেতার মতো হাত নেড়ে গণসংযোগ চালায়।

 

পেঁচা

ঘুমগুলো এক কার্তিকে গুম হয়ে গেলে
মানুষ আশ্রয় নেয় নিরপেক্ষ ডালে।
বছরজুড়ে চলে অবিশ্বাস্য অফার—
‘ডিড নাথিং, বি ওয়ান’।
অ-দৃশ্যত কোনো গোলযোগ নেই
তবু হারিয়ে যাচ্ছে জীবনদাসের পেঁচা।
অশ্বত্থের ডালে বসে নেই আর
শিশির করেনি শিকার।
জেগে পার করে দিবস শঙ্কায়
জেনে গেছে গোপন সংবাদে—
অস্ত্রউদ্ধারে যেতে হবে যেকোনো সময়।

 

ছায়াযুদ্ধ

এবেলা তুমিও করে নাও বউনি
এইতো এপাশে ধর্মযুদ্ধ চলছে
জন্ম কতোটা সহি? রেফারেন্স নেই।
প্রাগৈতিহাসিক কোনো মেরুকরণ
হাওয়া বড়ো বেগতিক, সুনসান
মুখোশই এখন সবচাইতে মূল্যবান।
বাজেটে আবারও বাড়তে পারে সম্পর্কের দাম
খেলাপির খামারে কবিদের ভিড় ;
তোমার মাথা গোঁজার ছাদ—ছদ্মবেশী কোনো যুদ্ধশিবির।

 

আমেরিকা

কেমন আছো, স্বপ্নের দেশ?
বেশকিছুদিন হলো তোমাকে নিয়ে দুঃস্বপ্নের সিরিজ দেখছি।
টিভি খুললেই একজন বন্দুকধারী
ঢুকে পড়ছে বাচ্চাদের স্কুলে—
দুইজন আততায়ী ঢুকে পড়ছে শপিংমলে
কেউ একজন মাঝরাস্তায় দাঁড়িয়ে
জনপ্রিয় খেলার মতোন
যাকে দেখছে গুলি করছে।
জনৈক ভদ্রলোক ঠাণ্ডামাথায়
গাড়ি উঠিয়ে দিচ্ছে মানুষের মিছিলে।
তোমার অবাধ সামরিকস্বর্গে
একজন কিশোরও আজ পকেটে
মৃত্যু নিয়ে ঘোরে।
তোমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু বন্দুক
চেয়ে দেখো গাদ্দারি করছে।

আরো পড়তে পারেন

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

বিপিন বিশ্বাসের একগুচ্ছ কবিতা

শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি আড়ালে যার মহাজাগতিক রশ্মির চারণভূমি প্রতিবন্ধকতাকে পাশকাটিয়ে নিমগ্ন বিশ্বের স্বরূপ দেখি ধ্যানের স্তরে। মায়ার কায়া ঝেড়ে ফেলে সত্যকে চিনি আপন করে জ্যোতির্ময় জেগে আছে দীপ্ত শিখার আপন জলে । মূল্যবোধের সলতে টাকে মারতে চাই না দিন-দুপুরে অন্ধকারে আলোক রেখা সদাই খোঁজি হৃদ মাঝারে।   জীবনের ধর্ম এই জীবন মা….

error: Content is protected !!