Author Picture

এরশাদ জাহানের একগুচ্ছ কবিতা

এরশাদ জাহান

অপেক্ষার অবসান

অপেক্ষা একটি কাঠ চেরাই কল
আমি সেখানে পড়ে থাকা
গোলাই কাঠ
বৃষ্টিতে ভিজছি…
রোদে শুকোচ্ছি…
চিরে ফেড়ে না তুমি ঘর বানালে
না তুমি সাজালে ঘর

উইপোকার দখলে
এখন আমার বাহির-ভেতর।

 

ব্যাধ

পৃথিবীর সমস্ত পাখি শিকারির
সমষ্টি নাম বলা যেতে পারে তুমি

আমি সাদা বক হতে চাইলে
তোমার মাংসের লোভ বাড়ে
শালিক কিংবা ময়না হতে চাইলে
খাঁচায় পুষে তোমার পছন্দের বুলি শেখাবার
চলে বেহায়া পায়তারা
জলময়ূর হতে চাইলেও
পেছনে পেছনে ছোটে তোমার অনুগত ক্যামেরার চোখ

আমি বরং
তোমার ইচ্ছের উত্তর গোলার্ধে দাঁড়কাক হব
ঠোঁটে তুলে তোমার দিন খাব রাত খাব।

 

কাঠের পুতুল

তোমরা যা চিরকালীন বলে জানো
হতে পারে তা কবেই হয়ে গেছে কাঠের পুতুল
আর সেইসব দায়হীন দয়াহীন জড়গুলো
এমনভাবে আঁকড়ে ধরে আছো
যেভাবে মৃত স্বামীর নাম ধরে
বেঁচে থাকে কোনো সুন্দরী বিধবা।

 

রন্ধনশিল্পী

সংসারে হাঁপিয়ে উঠলেই কেবল তুমি
স্মৃতির চাল ডাল নুন-লঙ্কায়
রন্ধনশিল্পে মনযোগী হও;
ওপ্রান্তে সুইচ চাপো
এপ্রান্তে জ্বলে ওঠে আগুন—

আগুনে আগুনে স্মৃতির
রান্নাবান্না শেষে—
তোমার ফেরার কী যে তাড়া
কলেমা ও কাবিনের দেশে!

রসিক রন্ধনশিল্পী তুমি
ঘর বুঝো, বর বুঝো, রসে কষে রান্না বুঝো
শুধু আগুনের কান্না বুঝো না।

 

অথৈ সমুদ্র

হাঁটতে হাঁটতে
আমরা এমন এক
রাস্তায় এসে দাঁড়িয়েছি
যেখানে
পেছনে বাঘ
সামনে সমুদ্র
আর তার দুইপাশে
দুই ঘন অরণ্য
যা নিন্দের কাঁটায় ভরা!

আমরা বরং—
পরিণতি হিসেবে
বেছে নিই অথৈ সমুদ্র

সামনে একমাত্র সমুদ্রই যেন
বিপদে বুকে নেয়া মায়ের পেটের ভাই।

আরো পড়তে পারেন

আরণ্যক শামছ-এর একগুচ্ছ কবিতা

প্রান্তিক কবি আমি এক নির্জনে পড়ে থাকা প্রান্তিক কবি। যেন সমাজতাত্ত্বিক সীমারেখার শেষপ্রান্তে ঝুলে থাকা এক পরিত্যাক্ত পলিথিন ব্যাগ। এখানে লুকিয়ে রেখেছি ক্ষুধা, দারিদ্র্য, ভগ্নস্বাস্থ্য, অসাম্য, অশিক্ষা ও মানুষের ছলাকলার ইতিহাস। আমি গাণিতিক ধারণার বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা এক অনস্তিত্বের অপ্রয়োজনীয় সংযুক্তি। তবে জিপসিদের মত আমিও দাঙ্গা বাঁধিয়ে দিতে পারি। আমিও মাটির ঘ্রাণ থেকে জেনে নিতে….

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

error: Content is protected !!