Author Picture

লুব্ধক মাহবুব এর দুটি কবিতা

লুব্ধক মাহবুব

ধ্রুবক প্রেম
.
ক্রমশ রাত এগিয়ে যাচ্ছে
চাঁদ বেসামাল লাল হয়ে
ঝুলে আছে আকাশে।
এই ছাদের উপরে
যেখানে ভেঙে পড়ে
একটি ধ্রুবক ভয়
মেঘ, শোকের
মিছিলের মতো
বৃষ্টির মুহূর্তের জন্য
অপেক্ষা করছে।
এক মুহূর্তেই
মিলিয়ে যাচ্ছে সব।
জানালার ওপাশে
উষ্ণতায় কাঁপছে রাত
পৃথিবীর বাতাস
থমকে গেছে যেন
এই জানালার বাইরে,
অচেনা কোন চোখ
তোমাকে এবং
আমাকে দেখছে।
মাথা থেকে পা পর্যন্ত
সবুজের ছড়াছড়ি
জ্বলন্ত স্মৃতির মতো
তোমার হাত রাখো
আমার ভালোবাসার
হাতে…
ক্রমশ শেষ হচ্ছে
এই স্বল্পকালীণ রাত
বাতাসে দুলে উঠছে
গাছের পাতা
গাছের পাতায় লেখা
আমার রাতের গল্প
যন্ত্রণার গল্প…
শোন…
তুমি কি শুনতে পাচ্ছ
বিদীর্ণ অন্ধকারের চিৎকার?
রাতের এই অচেনা উল্লাস
দেখে আমি হতাশ হই.
শোন তুমি কি আঁধারের
আওয়াজ শুনতে পাও?
তোমার ঠোঁট চুম্বন করুক
আমার প্রেমময় ঠোঁট,
কাছাকাছি থাকার
উষ্ণ উপলব্ধির মতো
বাতাস আমাদের
নিয়ে যাবে দূরে
বাতাস আমাদের
নিয়ে যাবে অনন্তে।
এর মধ্যে একটি
বোধ খেলা করে
আমি নিজেকে সঁপে
দিই স্নিগ্ধ চাঁদের বুকে
আঁধারকে কুর্নিশ করি…
আমার একান্ত ঘরে
খেলা করে নিঃসঙ্গতা
আমার হৃদয়
এক ভালোবাসার আকার…
নিজের সুখগুলোকে
আমি উপভোগ করি,
ফুলের ঝুড়িতে শুকিয়ে
যাচ্ছে ফুল বিবর্ণ
সময়ের মতো
আমার ফুল বাগানে
তোমার রপিত চারা
ক্ষণে ক্ষণে বেড়ে উঠছে
জানালার রেলিং থেকে
ভেসে আসে পাখিদের গান
আহ!
কী শান্তি!
অনাবিল শান্তি
এরই নাম যদি প্রেম হয়
তাহলে স্বর্গের কি আর
প্রয়োজন?
শান্তি, শুধুই
প্রেমময় প্রশান্তি।

 

অবাধ্য মানুষ
.
জলের ভিতরে গড়ায়
স্বচ্ছন্দে জলজ আভাসে-
আমার মন ভালো নেই,
ক্লান্ত আমি,
খুব স্বাভাবিকভাবে-
মধ্যাহ্নের এক ফালি
রোদ উড়ে এসে বসেছে
ছাতিম গাছটার
ডালে ডালে…
তোমার স্বপ্নের নায়ে
পাল তুলে,
তোমার মতোই
অবাধ্য হয়ে।
এখানে মানুষের
মুখোশে
নিত্য ঘুরছে
অমানুষ সুকৌশলে।
ফাগুনের পিছু হেঁটে
ব্যথিত হৃদয়ে!
ভর দুপুরে ঝাঁক ঝাঁক
পায়রা উড়ে যায়
বারান্দায় মেলে দেয়া
হরিণরঙা শাড়ীর আঁচল
খেলা করে
দখিণ হাওয়ায়;
বুঝি উড়েই চলে গেল-
ছাদের কোন থেকে
কোথায়,
কে জানে?
কি জানি, কে জানে!

আরো পড়তে পারেন

আরণ্যক শামছ-এর একগুচ্ছ কবিতা

প্রান্তিক কবি আমি এক নির্জনে পড়ে থাকা প্রান্তিক কবি। যেন সমাজতাত্ত্বিক সীমারেখার শেষপ্রান্তে ঝুলে থাকা এক পরিত্যাক্ত পলিথিন ব্যাগ। এখানে লুকিয়ে রেখেছি ক্ষুধা, দারিদ্র্য, ভগ্নস্বাস্থ্য, অসাম্য, অশিক্ষা ও মানুষের ছলাকলার ইতিহাস। আমি গাণিতিক ধারণার বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা এক অনস্তিত্বের অপ্রয়োজনীয় সংযুক্তি। তবে জিপসিদের মত আমিও দাঙ্গা বাঁধিয়ে দিতে পারি। আমিও মাটির ঘ্রাণ থেকে জেনে নিতে….

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

error: Content is protected !!