Author Picture

শফিকুল ইসলাম সোহাগ-এর একগুচ্ছ কবিতা

শফিকুল ইসলাম সোহাগ

ফাগুনে যে রোদ খেলা করে
.
এই ফাগুনে ঝরে গেছে ক্লান্তি চোখের মর্মধ্বনি
প্রতিক্ষণের স্বরলিপিতে রংদুপুরের ঠোটের হাসি
সম্ভাবনার সরোবরে পূর্ণমনেই দাঁড়িয়ে আছি
হলুদ রঙের ছোঁয়া লাগা শব্দপাঠের গালিচাতে
বিরুদ্ধতার প্রলয় শাখায় সুপ্ততাপের বাসন্তী ঘ্রাণ
আশাফুলের নতুন সুরেই জাগরণের অগ্নিশিখা

বহুমুখী প্রশান্তিরা শিল্প ছুঁবে দীপ্ত আলোয়
আম্রকানন মৌমাছিরা গুঞ্জরণের অগ্রপ্রাতে
এসে গেছে ফাগুন বেলা রক্তরসের সৌখিনতা
চাঙ্গা মনের রঙিন দুপুর অফুরান শখ ইচ্ছেমনে
চোখের তারায় ফাগুন এলো সযতনের বেলকনিতে
তৃষ্ণা জুড়ায় হলুদ মিছিল স্বপ্নপূরণ কুচকাওয়াজে

থুবড়ে পড়া বেদনারা উঠবে জেগে শিমুল ফুলে
কৃষ্ণচুড়ার রঙিন আলো ছড়িয়ে যাবে মুগ্ধ দুপুর
থাকুক প্রণয় অপেক্ষাতে ধরায় বসুক আনন্দসুর
অপরূপের রৌদ্রমেলায় প্রজ্জ্বলিত হাসুক আগুন
প্রতিচ্ছবির বাঁকে লুটায় কুসুমিত আপন আকাশ
ছন্দপ্রাণের সখা সাজাক অপরাহ্নের বসন্ত গান

 

অবিনশ্বর ভাবনার স্মারক
.
অবিশ্রান্ত লিখে যাও
বিপন্ন মুক্তির এই করিডোরে
প্রতিবাদী প্লাবনে উছলে উঠুক যৌবন ।

কবিতারা জাগুক অলিন্দে
পরিশুদ্ধ চেতনার মিনার ছুঁইয়ে
সমস্ত অবসাদ ছুঁড়ে দাও ,
চির অক্ষয়ের অস্তিত্ব নির্মাণে
প্রতিশ্রুতির অনুভবের সূর্যদীপ্তে ।

চিত্তে আঁকো-
সঞ্চারিত অবিনশ্বর ভাবনার স্মারক ।

তবু শৃংখলা ফিরে আসুক
ফিরে আসুক আগমনীর গান
জবান খুলে যাক-
কামড় বসাক অত্যাচারী বিষ-পিপঁড়ে
আবদ্ধ রাষ্টের মগজ ধোলায়ে
নতুন মেরুতে দোকান সাজুক-ভাঙা দিনের
রক্ত চোখে তবু হোক বোধের উৎসব ।

 

সভ্যতার আড়ালে পৈশাচিক চোখ
.
তালি মারা ইতিহাস- কুটচালে জব্দ
হিংসার আগুনে ত্রাস ছড়ায় হালের বলদ
সোনালি কাবিনের দেশে হাসে উপোসীর ঘর
নোংরা ইশারায় চলে নিরপরাধ পিঠে হাতুড়ি
অপরাজনৈতিক সংস্কৃতির রোষানলে
অস্পৃশ্য মেঘ পুঁজিপতি শক্তির বাহুবন্ধনে…
ভাটোয়ারা হয় মধ্যবিত্তের মুখের খোরাক

অপযশের মুখচোরা
প্রগতির মুমুর্ষু মগজে –
তাচ্ছিল্য করে অলৌকিক আজান
অস্তিত্বের স্বচ্ছ উঠোন
যেথায় বিশ্বাসের নিশ্চিত পথ,
নষ্ট ভাগ্যই বটে আমাদের

আয়ুরেখা শেষ হবে জানি
তবু কেন কানাকানি-মগজের প্যাঁচ
কেন এত বিশ্বাসের ভাঙ্গন খেলা
আতঁলামি মানুষের স্মর,
ঘড়ির কাঁটা ঘুরছে-
মানচিত্র সাজছে হলুদ আলোয়
কাছাকাছি লাল সংকেত দিচ্ছে, অপলাপের জর

অতপর শিকারী পাখিরা এখনো প্রস্তুতি নিচ্ছে…

 

মমতার বাড়ি
.
যেখানে শিমের মাচা আর লাউয়ের ঘুরি
শালিকের দেশ যেন শ্যামলের বহুরূপী ঢেউ
সৃষ্টির গহীন সমুদ্রে-বাতাসের আবেগী হানা
কৃষকের মাঠে রাখালি সুর আর কাঠালের ঘ্রাণ

সবুজ আঁচড়ের দাগ-অসীমের পরমতম সুখ
মৃত্তিকার আকাশ মায়াবী অপেক্ষায় থাকে রোজ
নক্ষত্রের সড়কে জানি নেমে আসে বোধের ঢল
জীবন্ত নদীর শাখা-প্রশাখায় ফিরি মমতার বাড়ি

ওখানে ইচ্ছেরা প্রতি প্রহরে নিভায় মননের আগুন
জন্ম থেকেই পুড়ি বেদনাদগ্ধের ধূসরাভনীল মাঠ
যন্ত্রণাহীন মন্ত্র পাঠে সোনালি বৃক্ষ শাখায় পাখিদের শীষ
সবুজ পাতার জংশনে অনুবাদ হয় সৃষ্টিতত্বের বোধ

নিরব কুয়াশা ভেজা চোখ মুছি শহোরের দেয়াল ঘেঁষে
যাওয়া হয়নি আজও-উৎসবের বটবৃক্ষের কুটিরে
যেখানে হেসে ওঠা সকাল ফুলে-ফলে ভরা রূপালি গ্রাম

 

আশান্বিত ঢেকুর
.
সর্বাত্মক একটা বিপ্লব
আকুতি জানায় বেরসিক নগরের লোক
যেখানে অবৈধতার আয়না ভেঙ্গে
তৈরি হবে প্রসারিত নাগরিক দেয়াল

ব্যবচ্ছেদের উল্টো পিঠে
নিখুঁত একটি অভিযান জাপটে ধরবে
গণতন্ত্রের বেওয়ারিশ প্রলাপ
শোকাহত পাখিদল আবার
ডানা ঝাপটাবে সৃষ্টি এবং কৃষ্টির বৃষ্টিতে।

ছিঃ! মান শাসন নিশ্চিহ্নে
অপেক্ষায় একটি সম্ভাব্য মানচিত্র রাষ্ট্র
যেখানে মানুষ পাবে-স্বাচ্ছন্দ্য মেমোর পরিচ্ছন্ন খসড়া

 

ভাঙ্গো
.
সম্মুখে চলো তুমি ঠেলে মেঘ
সাহসটা বুকে নিয়েই বহুদূর
সত্যের পথপানে মনসব
ভেঙ্গে দাও মসনদ শত্রুর।

হাসিমুখে মোকাবেলা শুরু হোক
সরে যাক কালোছায়া প্রতারক
মিথ্যার জালে পড়ুক দুশমন
রোদ হোক আগামীর মসনদ।

ঠেঙ্গাও যতসব বেইমান
সমাজকে ভাঙ্গছে প্রতিদিন
এখনি শুরু হোক প্রতিবাদ
মেরামত হবে আজ রাষ্ট্রের।

গ্লানিসব চিরতরে উঠে যাক
কর্মঠ আলো হোক প্রগতির
স্বপ্ন ছুঁয়ে যাক দশদিক
সুখ হোক স্বস্তির নিঃশ্বাস।

জেনে গেছি ইতিহাস নিরবে
তুমি কি আর জবানে বলবে
চাপাবাজী করে সব হয়না
বরনের পালা এখন ক্বলবে।

আর কত রক্ত বাংলার আকাশে
মিডিয়া খুললেই বুঝা যায়
স্বার্থের হুকুমত জনমনে ধিক্কার
ভাঙ্গবে তাবেদারি হুকুমত।

শেকড়ে ছুঁয়ে আছে হিম্মত
রঙিন দুপুরটা জাগতে
খেলাটা হবে যেন শিঘ্রই
দাজ্জালের উতসব ভাঙ্গতে।

আরো পড়তে পারেন

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

বিপিন বিশ্বাসের একগুচ্ছ কবিতা

শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি আড়ালে যার মহাজাগতিক রশ্মির চারণভূমি প্রতিবন্ধকতাকে পাশকাটিয়ে নিমগ্ন বিশ্বের স্বরূপ দেখি ধ্যানের স্তরে। মায়ার কায়া ঝেড়ে ফেলে সত্যকে চিনি আপন করে জ্যোতির্ময় জেগে আছে দীপ্ত শিখার আপন জলে । মূল্যবোধের সলতে টাকে মারতে চাই না দিন-দুপুরে অন্ধকারে আলোক রেখা সদাই খোঁজি হৃদ মাঝারে।   জীবনের ধর্ম এই জীবন মা….

error: Content is protected !!