Author Picture

সুয়েজ করিম এর একগুচ্ছ কবিতা

সুয়েজ করিম

মহাশ্বেতা
.
মহাশ্বেতা-
তুমি আছো অনিন্দ্য চন্দ্রাবতীর দেশে
শরতের প্রমোদ রোদের নিবিড় আলিঙ্গনে ,
জ্যোৎস্নাবিলাস বিকিনি পরা রাতে
মহাকাশের হিলিয়ামে তারা ফোটা ধূলি পথে
আমার বেদনা থেকে আলোকবর্ষ দূরে…
ভুলতে পারি না তোমার মায়ার প্রীতির সমুদ্দুর;
ঢাকতে পারে না স্মৃতির রশ্মি শূন্যের কালো মেঘ,
বুকের ভেতরে সাত সাগরের বিদ্রোহী লাল ঢেউ
কাশের কাফনে সেলাই করা নির্ঘুম নীল রাত
তোমাকে পাওয়ার চক্রব্যূহ হাক,
হৃদমহলে সন্ধ্যা নামার ডাক।

আগুনভরা নদী 
.
পৃথিবীর মতো ঘুরি-
তোমার কোমল কক্ষপথে…
যে পথে ওড়ে না সন্ধ্যা বাতির ধূপ
কেবলি জ্বলে শিশুর মতো চাঁদ;
রাত পোহালে ধলপ্রহরের ডানায়
ভূতলে এসো শিশিরের জলযানে
তোমার জমিনে ছিটিয়ে দেব জল
খনন করেছি বুকের ভেতরে আগুনভরা নদী।

অনন্ত প্রতীক্ষায়
.
এসো- এই সবুজ ভেজা ঘাসে
আমার হৃদয়ের সরল দহলিজে
পরিযায়ী পাখির ডানায় অতিদূর থেকে
শিশিরের নহর ভেঙে ভেঙে
এসো- কুহেলির চাঁদোয়ায় নরম ভোরে
দুপুরের রোদ্দুরে ওমের উৎসবে
আবিষ্ট রাত্রির বিভোর ঘুমেরা অধীর-
চাঁদের স্নিগ্ধ বিছানায়
তোমার অনন্ত প্রতীক্ষায়…

ভাবনা
.
ভাবনা গুলো পাখি হয়ে ওড়ে
স্বপ্ন বুনে যাচ্ছি ঘুমের ঘোরে।
নিকষ রাতে তোমার দেহের ছবি
ঠিক যেন’গো ভর দুপুরের রবি।

কেমন করে জড়াও মায়ার ফ্রেমে
সূর্যের মত ঢলে পড়ি প্রেমে।
তাইতো তুমি আঁকাবাঁকা নদী
হৃদয় পানে বইছো নিরবধি।

নিঝুম রাতে তোমার কথার রসে
কক্ষ ভুলে তারা পড়ে খসে।
ক্লান্ত প্রাণে ঊষর বুকে তুমি
দুই ঠোঁটে দাও তপ্ত ললাট চুমি।

পূর্ণিমার পাণ্ডুলিপি
.
ছন্দসজ্জা বিভাবরীর পৃষ্ঠা জুড়ে
বিনিদ্র কবি মন বুনছে ফসলি কবিতা
প্রিয়ার সুগন্ধি ঢেউ তুলে কলমে
নীল রাত্রির ঝিম ধরা রোদে
নক্ষত্র ও জোনাকির প্রচ্ছদে
লিখে যান কবি পূর্ণিমার পাণ্ডুলিপি।

বিরাম চিহ্ন
.
হাঁটছি আদমের পদচিহ্ন ধরে…
পুণ্য ও পাপের মোড়কে জীবনের গিরিপথে;
শ্বাপদসংকুল বন কিংবা ফণা তোলা অর্ণব গর্জন
ক্রমশ দু’পায়ে দলে ছুটছি ঈপ্সিত সূর্য লক্ষ্যে।
জীবনবাহী কাচের সওয়ারে
চলছি পৃথিবীর মর্মরেখায়,
তারপর নতশিরে নিশ্চল জীবন
দীর্ঘ বিরাম চিহ্নে আদিম অন্ধকারে
থেমে যাবে একদিন-
শূন্যে তাক করা কবরের ইস্টিশনে।

আরো পড়তে পারেন

রিয়াসাত আল ওয়াসিফের একগুচ্ছ কবিতা

রেট্রোসপেক্টিভ বই সাজাতে সাজাতে জনৈক কবির মনে হলো— এত এত বই কবে পড়ব! এই ফোকাস হারানো সময়ে মানুষ যেন গুড়ো গুড়ো কাচ। হঠাৎ তাঁর মনে হলো বই বাদ দিয়ে আজ বরং পাপগুলোকে একটু সাজিয়ে গুছিয়ে রাখা যাক। কতদিন দেখেনি দেখতে চায়নি, দেখা হয় না, দেখা যায় না। যাপিত জীবনের কাদায় শুধু মুখ ঢেকে যায়। মুখ….

সাযযাদ আনসারীর একগুচ্ছ কবিতা

ঋতু রমনী অন্তহীন পথের মত ছিলো ঋতু রমনী চেনা পাতা ও পাখি থেকে অচেনা ফুলের পথে চলে গেল সে। কথা ছিলো তার সাথে রাগ-রাগিনীর কথা ছিলো অসংখ্য পত্র-পল্লবীর, কথা ছিলো আমাদের নাম উড়াবার কথা ছিলো কত কথা দেবার নেবার। এই খানে আমাদের মন অন্ধ অধীর এই খানে না বাঁধা ঘাট জীবন নদীর, এই খানে পথে….

আজাদুর রহমানের তিনটি কবিতা

দূরত্ব একটা ধারণা আমাদের মধ্যে কোন দূরত্ব নেই। তুমি যেভাবেই থাকো, শুয়ে-বসে-দাঁড়িয়ে সামনে-পিছনে-ডাইনে-বায়ে তোমার যেভাবে মন চায় এমনকি পরস্পর গভীর আলিঙ্গনেও। তুমি যেখানেই থাকো ঢাকা বগুড়া চট্রগ্রাম আমেরিকা কোস্টারিকা কিংবা পৃথিবীর যে কোণাতেই, আমাদের মধ্যে এতটুকু দূরত্ব নেই। দূরত্ব বলে আসলে কিছুই নেই এই যে ছায়াপথের পর সুদূরে জ্বলছে যে তারা সেখানে কেউ কারও দূরে….

error: Content is protected !!