Author Picture

মনদীপ ঘরাই এর একগুচ্ছ কবিতা

মনদীপ ঘরাই

নতুন কিছু হবার নেই
.
জন্মটা একঘেঁয়ে হয়ে গেছে;
মৃত্যুটা আরো বেশি সয়ে গেছে।
বেতন থেকে বেতনের দিনে ঘুরছে সংসার।
চুলোর হালকা দারুণ আঁচে পুড়ছে সংসার।
মানুষগুলো ধাপে ধাপে শিশু থেকে বুড়ো হচ্ছে;
ফানুশগুলো তাপে তাপে শূণ্য থেকে পুরো হচ্ছে।
পুরো হচ্ছে। পুরোটাই।
সিনেমায় যে নায়িকাকে দেখেছো কাল,
সে আজকের ইজিচেয়ারের ঐ বুড়োটাই।
এতকিছুর পরেও আমরা আছি গাছের মতো দাঁড়িয়ে।
পুরাতন গাছ;
নতুন কিছু কোনোমতেই হবার নেই।
কারো কারো আজ দিনটা পকেটে আছে।
সেটাও আবার সবার নেই।
পাতা আসে। পাতা যায়। ফুলগুলো শুকিয়েছে।
চুকিয়েছে রাজ্যপাট।
গাছগুলো?
করাতের আদর সয়ে সয়ে;
হয়ে গেছে ফুলশয্যার সাজানো খাট।

 

জানিস না!
.
তুই কি জানিস?
আমার মনে কখন কখন বৃষ্টি নামে?
তুমি কি মানিস?
তুই কাঁদলে আমার মনেও কান্না জমে।

তুই চাইলেই জানতে পারিস- আমার সে খোঁজ।
মেঘ জমিয়ে আনতে পারিস-বৃষ্টি যে রোজ!

তুই কি আনিস?

আনিস না। মানিস না।
জানতে চেয়েও জানিস না।
আদর করে কক্ষনো তো জলজ বুকে
টানিস না!

 

ক্রিকেটারের এপিটাফ
.
দেশের সেরা ক্রিকেটার যাচ্ছে অবসরে আজ…
কত কত লেন্স! কত কত ফুল।
কাল সব বাসি হবে।
ক্রিকেটারের মনের বয়স হুট করে আশি হবে।
কী যেনো লিখছে ক্রিকেটার…
চুক্তিপত্র?
চিঠি?

নাকি কোচ হবার অঙ্গীকার?
১১ জনের দলের ১০ জন তো রয়েই গেলো!
সে হবে তাহলে সঙ্গী কার?
সে কারো সঙ্গী হতে কলম তোলে নি আজ।
প্রচন্ড ভীড় চারপাশে রেখে লিখছে-
এপিটাফ; ভেঙ্গে জীবনের ভাঁজ।
“কাল থেকে কারো মুখে উচ্চারিত হবে না এ নাম;
স্কোরবোর্ডে উঠবে না কোনো সংখ্যা।
তবু আমি মাঠে থাকতে চাই।
যখন মরে যাই…
জ্বেলে দিও মাঠের সব আলো।
সবুজ মাঠ। আহা আমার মাঠ…
বাউন্ডারির দড়ি পেরিয়ে ত্রিশ গজে ঢুকে যেও সারাসরি।
চলে যেও একেবারে পিচের মাঝ বরাবর।
২২ গজ? অত জায়গার প্রয়োজন হবে না আমার।
পিচের ঠিক মাঝের সাড়ে তিন হাতে…
শেষবারের মতো শুইয়ে দিও আমায়।
মাঠের মানুষ বরং আমি মাঠেই রয়ে যাই।
একজন ক্রিকেটারের এটাই তো নির্মম এপিটাফ!
এর বেশি আর কী চাই?”

 

এইম ইন লাইফ
.
পরীক্ষায় এসেছিলো ‘এইম ইন লাইফ’,
আমি লিখলাম, “বড় হয়ে আমি মেশিন হবো”
আখের রস বানানোর মেশিন।
পৃথিবীর সব আখ; আমার ধাতব দাঁতে পিষে

-বানাবো মিষ্টি শরবত।
দশ টাকা গ্লাসের সে শরবত খেয়ে সবাই
মিষ্টি কথা বলবে;
দুনিয়াটা ভরে যাবে-ফুলের মতো মানুষে।
পরীক্ষার খাতা ছিঁড়ে বাস্তবে বের হয়ে দেখি;
আমি হয়ে গেছি আখ। বাকি সবাই মেশিন।

আরো পড়তে পারেন

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

বিপিন বিশ্বাসের একগুচ্ছ কবিতা

শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি আড়ালে যার মহাজাগতিক রশ্মির চারণভূমি প্রতিবন্ধকতাকে পাশকাটিয়ে নিমগ্ন বিশ্বের স্বরূপ দেখি ধ্যানের স্তরে। মায়ার কায়া ঝেড়ে ফেলে সত্যকে চিনি আপন করে জ্যোতির্ময় জেগে আছে দীপ্ত শিখার আপন জলে । মূল্যবোধের সলতে টাকে মারতে চাই না দিন-দুপুরে অন্ধকারে আলোক রেখা সদাই খোঁজি হৃদ মাঝারে।   জীবনের ধর্ম এই জীবন মা….

error: Content is protected !!