Author Picture

কামরুল আলম সিদ্দিকী’র একগুচ্ছ কবিতা

কামরুল আলম সিদ্দিকী

জীবন
.
এক বসন্তের সখা তুমি আমের বোলে পাতা,
এক শ্রাবণে তোমার সাথে ভিজেছিলো খাতা।

এক পউষের সন্ধ্যাবাতি সাক্ষী আছে আজও,
স্বাক্ষী আছে পোড়া সলতে মুখোমুখি রাতও।

তেল পুড়লো সলতে পুড়লো, হলোনা শেষ কথা-
হলোনা আর চোখের দেখা, এখন চোখে ব্যথা।

বসন্ত রাত এলেই আজও চক্ষুপিদিম খুঁজি,
আসল কবে হারিয়ে গেছে নকল সলতে গুঁজি।

বোশেখ এলে বছর গুনি, গুনি বত্রিশ সন-
তোমার-আমার ভেস্তে গেছে, ভেস্তে গেছে পণ।

এক চৈতে কাটাকুটি, কাটাকুটি খেলতে খেলতে
কেটে গেছে বোল, জিতে গেছো তুমি। বেলতে বেলতে
জীবন, কোন সাকিনে আজ লটকে গেছি আমি।

 

কইর মানুষ কই যায়
.
বসন্ত লাগছে বঙ্গে,কইর মানুষ কই যাইবো উথালি বাওয়ে।
মাতালি ভোমরা পাতালি খাইবো ঘুইরা বনান্তি আধার বাদাড়ে।
তেরোশ সাতাইশে বাপ আছিন মা-ও আছিন ফাগুইন্যা চাতালে।
আজ উড়ে খালি বাও, খালি গাঁও হাহাকাল চৌদ্দশ সাতাইশে।
বসন্ত আইছেরে ফের কইর মানুষ কই গেছে বাউরি বাতাসে।
কই গেছে ছনুর মা ধনুর বাপ, আথাল-চাতাল থইয়া কোন পাতালে।
মায়া গেছে দয়া গেছে, হালে চক্ষের মণিত খালি আনিপাই নাচে।
কে যাইবা বিনালের পথে, দূরের বাওয়ের বনে কাল ফাগুনে।
চলো বন্ধু হই ঝাঁকে ঝাঁকে, আমসারোদের মতো হারাই সুদূরে।

 

টান
.
মায়াবনে মুখোমুখি মৃত্যু ও ফানুস,
টানে রোজ ছায়াভূত বিদেহী মানুষ-
মানস পাতালে তাই ঘর বাঁধি ঝড়ে
ঈশ্বরের বিস্ময়ের অমর পাথরে!

কৈলাস বাতাসে উড়ি শিখরে শিখরে,
তবু মহা টানাটানি মানুষে ঈশ্বরে-
টানছে কে অশরীরী কার আত্মা হাত!
জমিনের টান লাগে বসন্তের রাত।

 

এ কোন নক্ষত্র তুমি
.
আলোহীন ফুল ফোটে, অন্ধবনে মধুমাছি করে গুনগুন,
এ কোন জোনাক তুমি, তবু বনে জ্বেলে রাখো পৃথিবীর বুন।
অন্ধকারে পাখি ডাকে, বন্দীবায়ু ডেকে তোলে বসন্তের সুর,
এ কোন নক্ষত্র তুমি, কৃষ্ণপক্ষে তুলে রাখো আমাদের ভোর!

 

প্রার্থনা
.
সিডিউল ভেঙে
চতুর্দিকে বাজছে ঘন্টার পর ঘন্টা,
একে একে ট্রেনগুলো ছেড়ে যাচ্ছে স্টেশান,
এ কোন ঘন্টা তুমি অবিরাম বাজাও
ওহ্ স্টেশন মাস্টার!
তোমার সরাইখানা ভেঙে
কোন বিরামপুরে
একে একে তুমি সরাও প্যাসেঞ্জার?

ওখানে কি বসন্তের নতুন ফুটিয়েছো পুস্পধাম!

যে জগত শকুন আর শকুনেরা নিয়ে গেছে,
যে জগত হায়েনা আর হায়েনারা নিয়ে গেছে,
সে জগতে তুমি কি প্রতিদানে
নতুন নিল পরাজিতা ফুটাও!

চতুর্দিকে ঘন্টার পর ঘন্টা…
ট্রেনগুলো ছেড়ে যাওয়ার একের পর এক
জ্বলে উঠা সবুজ সংকেত !!

এই সংকেত নামাও…
এই ঘন্টা থামাও!
ক্ষমা করো অচিন অনাদি বন্ধু আমার!
তোমারই যাদুঘরে আবার অপরাজিতা ফুটাও!!!

এই জংশনে পোড়া ছাই থেকে তুমি আবার
ফিনিক্স পাখি উড়াও!

আরো পড়তে পারেন

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

বিপিন বিশ্বাসের একগুচ্ছ কবিতা

শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি আড়ালে যার মহাজাগতিক রশ্মির চারণভূমি প্রতিবন্ধকতাকে পাশকাটিয়ে নিমগ্ন বিশ্বের স্বরূপ দেখি ধ্যানের স্তরে। মায়ার কায়া ঝেড়ে ফেলে সত্যকে চিনি আপন করে জ্যোতির্ময় জেগে আছে দীপ্ত শিখার আপন জলে । মূল্যবোধের সলতে টাকে মারতে চাই না দিন-দুপুরে অন্ধকারে আলোক রেখা সদাই খোঁজি হৃদ মাঝারে।   জীবনের ধর্ম এই জীবন মা….

error: Content is protected !!