Author Picture

ত্রিভুজ প্রেমের মামলা

খন্দকার রেজাউল করিম

বিউটি অ্যান্ড দ্য বিস্ট

 

সুজান এবং ডেভের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়নি। পুরানো বাড়িটার মালিকানা এখনো দুজনের নামে। ছোট্ট দুই কামরার সস্তা বাড়িটার জরাজীর্ণ দশা, কখন ভেঙে পড়া তার ঠিক নেই। ডেভ বাড়িটার মেরামতের কাজে হাত লাগায়, মর্টগেজের টাকা প্রতিমাসে পরিশোধ করে। এতে ডেভের আপত্তি নেই; বিবাহ বিচ্ছেদ হলে ছেলে এবং স্ত্রীর ভরণপোষণের জন্যে হয়তো আদালত তাকে আরো বেশি টাকা দিতে বাধ্য করতো।
সুজানের স্বামী ডেভকে ঘিরে কেভিনের মনে একটা তীব্র কৌতূহল ছিল। সুজান কেনই বা ডেভকে বিয়ে করেছিল, কেনই বা এখন আলাদা হয়ে বাস করছে, আর কেনই বা এমন চরিত্রহীন স্বামীর বিরুদ্ধে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা ঠুকছে না! সুজানের তো রূপ, যৌবন, স্বাস্থ্য, এবং পানিপ্রার্থী পুরুষ-ভক্তের কোনো অভাব নেই।
গাড়ির এয়ার কন্ডিশনের গোলযোগ ডেভের সাথে পরিচয় করার সুযোগটা করে দিলো। সকালবেলা কেভিন ডেভস অটোমোবিলের উদ্দেশ্যে গাড়ি নিয়ে বের হচ্ছিলো। তখনি ক্যারোলের ফোন এলো, ‘হ্যালো মিস্টার এল এ, আমি মিসেস এল এ বলছি। তুমি কি আজ তোমার গাড়ি মেরামতের জন্যে ডেভের দোকানে যাচ্ছ? আমাকে সঙ্গে নিবে? পরীক্ষা শেষ হয়ে গেছে, হাতে কোনো কাজ নেই, একেবারে বোর হয়ে গেছি।’
‘এই যে ডেভ, পরিচয় করিয়ে দিই’, দোকানে পৌঁছে ক্যারোল বললো, ‘আমাদের স্কুলের নতুন শিক্ষক কেভিন। উনার গাড়ির এসি কাজ করছে না। তাই এসেছি তোমার দোকানে।’
‘কোনো ব্যাপার নয়’, ডেভ জানালো, ‘আজ বিকালেই গাড়িটা ফেরত পাবে।’
ডেভকে দেখে কেভিন একেবারেই মনমরা হয়ে পড়লো। মোটাসোটা ভুঁড়িওয়ালা মধ্যবয়েসী এক লোক। অমার্জিত কথাবার্তা। বিয়ারের বোতলে চুমুক দিতে দিতে কথা বলছে। সুজানকে কোনোভাবেই এর সাথে মিলানো যায় না। সুজান সবসময় বই পড়ে, এই দোকানের টেবিলে কিছু সস্তা অশ্লীল ম্যাগাজিন পড়ে আছে। কেভিনের শরীরটা ঘিনঘিন করে উঠলো। বিউটি আন্ড দ্য বিস্ট। কি দেখে এর প্রেমে পড়েছিল সুজান?

মোটাসোটা ভুঁড়িওয়ালা মধ্যবয়েসী এক লোক। অমার্জিত কথাবার্তা। বিয়ারের বোতলে চুমুক দিতে দিতে কথা বলছে। সুজানকে কোনোভাবেই এর সাথে মিলানো যায় না। সুজান সবসময় বই পড়ে

সুজান এবং তার ছেলে জেসির সাথে কেভিনের প্রতিদিন বেসবল ক্যাম্পে দেখা হয়। খ্যাতনামা খেলোয়াড়দের লেখা বই এবং ছবি উপহার দিয়ে কেভিন ছেলেটির মন জয় করে ফেলেছে। এমনকি সুজানের পোষা কুকুরটা পর্যন্ত কেভিনের ভক্ত হয়ে পড়েছে। ছয় মাস কেটে গেল, কিন্তু সুজানের মন যেন ‘‘সহস্র বৎসরের সাধনার ধন।’’ তবে অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে, ছেলে সমেত কেভিনের সাথে রেস্টুরেন্টে খেতে যেতে সুজানের আর তেমন আপত্তি নেই। ইদানিং সুজান বেশ সেজেগুজে থাকে, পোশাক থেকে দামি পারফিউমের গন্ধ ভেসে আসে। আগে সুজান ক্যারোলের দোহাই পাড়তো, তার মতো বিবাহিত মেয়ের পিছনে না ঘুরে ক্যারোলের পিছনে ঘোরার পরামর্শ দিতো। এখন সেদিন গেছে। ছেলেবেলার লক্ষী মেয়ে সুজান ছলনাময়ী এক নারীতে পরিণত হয়েছে। প্রেমের বড়শিতে আটকে গেছে কেভিন, ধীরে ধীরে সুতা ছেড়ে সুজান রুই মাছের মতো ওকে খেলাচ্ছে।
ক্যারোল তিন মাস হলো UCLA তে পড়তে লস এঞ্জেলস চলে গেছে। পড়াশুনা নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত, তবুও কেভিনের সাথে মাঝে মাঝে ফোনে কথা হয়, ‘হ্যালো, মিস্টার এল এ, কেমন আছো? আমি মিসেস এল এ বলছি।’
‘এতদিনে একটা বয়ফ্রেন্ড জোগাড় করেছো নিশ্চয়।’
‘পড়াশুনার চাপে স্নানাহার বন্ধ, শরীরে ধুলা উড়ছে। প্রেম করার সময় কোথায়? সেমিস্টার প্রায় শেষ হয়ে এলো। বাড়ি ফিরলে তোমার সাথে দেখা হবে, ভাবতেই ভালো লাগছে।’
প্রতি রবিবার সকালে ডেভ ছেলে জেসিকে নিয়ে যায়, রাত দশটায় ফেরত দিতে আসে। ডেভের সাথে ডেভের বর্তমান গার্লফ্রেন্ড জেনাও মাঝে মাঝে আসে। জেনা এবং নিজের পিতার কাছে জেসি তেমন সহজ হতে পারে না। ওকে খুশি করার জন্যে ডেভ যথেষ্ট পরিশ্রম করে, পার্কে যেয়ে ঘুড়ি আর বেলুন ওড়ায়, দোকানে দোকানে ঘুরে জেসির পছন্দের সবকিছু কিনে দেয়। কেভিনও এই দিনটির অপেক্ষায় বসে থাকে। সারাদিন সুজানের সাথে ঘোরার দিন, মনের কথা একটু একটু করে বলার দিন।

আরো পড়তে পারেন

মহামায়া (পর্ব-২)

পড়ুন—  মহামায়া (পর্ব-১) ৩. কাঁচা রাস্তায় উঠতে উঠতে কাপড় ভিজে গায়ের সাথে লেপ্টে গেছে। পায়ের সাথে কাপড় জড়িয়ে যাচ্ছে। হাঁটতে কষ্ট হচ্ছে। সবার আগে মনিশঙ্কর হাঁটছে। তার হাতে মাথায় খাবারের টিন। একটা কাপড়ের ট্রাঙ্ক। সকলের হাতেই কাপড়ের পুটুলি। এতটুকু আসতেই হাপিয়ে উঠেছে। আরো অনেকটা দূর যেতে হবে হেঁটে। তারপর নৌকায় সীমানার কাছাকাছি কোনো একটা জায়গায়।….

মহামায়া (পর্ব-১)

১. সূর্য উঠতে এখনো অনেকটা দেরি। আকাশে কোনো তারা নেই। পুরোটা আকাশ মেঘে ঢাকা। রাতের অন্ধকারটা আজকে আরও বেশি চোখে লাগছে। বাতাস হচ্ছে। মাঝে মাঝে মেঘের আলোতে দেবীপুর গ্রামটা দেখা যাচ্ছে। মুহুর্তের জন্য অন্ধকার সরে আলোয় ভেসে যাচ্ছে। রাধাশঙ্করের ভিটাবাড়ি, ধান ক্ষেত, বাঁশঝাড় হাইস্কুল আলোয় ভেসে যাচ্ছে মুহূর্তের জন্য। মহামায়া আর মনিশঙ্করের ঘরে হারিকেন জ্বলছে।….

স্বর্ণবোয়াল

মোবারক তার কন্যার পাতে তরকারি তুলে দেয় আর বলে, আইজ কয় পদের মাছ খাইতেছ সেইটা খাবা আর বলবা মা! দেখি তুমি কেমুন মাছ চিনো! ময়না তার গোলগাল তামাটে মুখে একটা মধুর হাসি ফুটিয়ে উল্লসিত হয়ে ওঠে এই প্রতিযোগিতায় নামার জন্য। যদিও পুরষ্কার ফুরষ্কারের কোন তোয়াক্কা নাই। খাবার সময় বাপবেটির এইসব ফুড়ুৎ-ফাড়ুৎ খেলা আজকাল নিয়মিত কারবার।….

error: Content is protected !!