Author Picture

একগুচ্ছ কবিতা

চৌধুরী রওশন ইসলাম

তোর কথা ভাবি
.
আকাশ যখন ঢেকে যায় কালো মেঘে,
তোরই সুখস্মৃতি হৃদয়ে ওঠে জেগে।
এখনও আমি এইটুকু করি দাবী,
মন খারাপ হলেই তোর কথা ভাবি।

গোল হয়ে চাঁদ আকাশে যখন ওঠে,
জ্যোৎস্নার শুভ্র ফুল আদিগন্ত ফোটে,
তখনও আমি এইটুকু করি দাবী,
জানালায় বসে তোর কথা শুধু ভাবি।

শুভ্র মেঘের দল শরতাকাশ জুড়ে
উদাসীন হয়ে বেড়ায় যখন ঘুরে,
স্মৃতির তালা খুলে দেয় কোন্ সে চাবি ?
আকাশের দিকে চেয়ে তোর কথা ভাবি।

মেঠো পথে যদি কিষাণ-কিষাণী এসে
মুখপানে চেয়ে সলাজ অবাক হেসে,
শুধায় আমারে, কোন গাঁয়ে তুই যাবি ?
আনমনা হয়ে তোর গাঁওখানি ভাবি।

ঘন আঁধারে মোড়ানো এ নিস্তব্ধ রাতে
স্বপ্নঘোরে রেখেছি এ হাত কার হাতে ?
চোখ মেলে দেখি আঁধার জগৎ-প্লাবী—
তারি মাঝে বসে একা তোর কথা ভাবি।


ভুল
.
এখন বুঝি আমার ছবি জাগে না তোমার অন্তরে।
মেনেই নিলাম ভুল করেছি,
নিজের হাতেই বুক চিরেছি,
পরাণ ধরে টান দিয়েছি,
খানিকটা পথ হেঁটে গেছি
তোমার মিথ্যে সে হাত ধরে।

এখন আমার বুক জ্বলে যায়, বুক জ্বলে যায় বেদন-বিষে।
বালিশ ভেজে অন্ধকারে,
স্বপ্ন গুলো ছুরি মারে
বুকের ভেতর, হাহাকারে
কেঁদে কেঁদে ডাকি কারে,
কেউ বোঝে নাই দুঃখ কিসে।

দীঘির ’পরে জলের বুকে নিশীথ-শিশির নিশ্চুপ ঝরে।
দীঘির তাতে কী আসে-যায় ?
শিশির-কণা কোথায় হারায় !
খানিকটা পথ তেমনি বৃথাই
হেঁটে গেছি বেভুল ভাবনায়—
সেসব কথা মনে পড়ে।

এখন বুঝি আমার ছবি জাগে না তোমার অন্তরে।
মেনেই নিলাম ভুল করেছি,
নিজের হাতেই বুক চিরেছি,
পরাণ ধরে টান দিয়েছি,
খানিকটা পথ হেঁটে গেছি
তোমার মিথ্যে সে হাত ধরে।


একতরফা
.
আমিতো তোমার পর নই;
আমায় বললে কী ক্ষতি হয় বলো ?
লুকিয়ে খাচ্ছ গুড় মুড়ি খৈ,
শুনতে গেলেই আরেক পথে চলো।

আমি আছি কাছের মানুষ;
হয়তো তুমি বোঝনাই এর মানে।
কিম্বা তোমার ফেরে নি হুশ;
আর সকলে সবই এখন জানে।

তুমি ডুবে ডুবে খাচ্ছ জল—
দোষ দেখি নাই। কী যায়-আসে তাতে ?
কেন যে এত চাতুরি-ছল,
কেনই বা তোমার ঘা লাগছে আতে ?

যারে নিয়ে এত কথা বলা,
যারে তুমি আজ লুকিয়ে ভালোবাসো,
তার জন্যে সব দ্বার খোলা;
তারে সাথে নিয়ে আমার বাড়ি আসো।

আমি তোমার আপন লোক,
তুমি আমায় নাইবা বাসলে ভালো;
আমার বাসা নিষ্ফল হোক,
তোমার মনে ফুটুক ভোরের আলো।।


আজকে তুমি
.
আজকে তুমি কাহার সাথে ঘুরতে গেলে জানতে চাই;
জানতে চাই নরম হাতে মুঠো ভরে কাহার আঙুল ধরেছিলে;
আল্পনাতে শরীর ঢেকে কাহার পাশে বসেছিলে জানতে চাই;
আড়-নয়নে চমক হেনে কাহার তুচ্ছ হৃদয় নিয়ে
ইচ্ছে মতো খেলেছিলে জানতে চাই জানতে চাই।

আজকে তুমি কোথায় গেলে কোন্ কাননের ফুল হলে জানতে চাই;
ভোরের বেলা শয়ন ছেড়ে কাহার কথা প্রথম তোমার স্মরণ হলো;
সাজ-সকালে সাজতে বসে কল্পনাতে কাহার পাশে বসেছিলে;
জানতে চাই জানতে চাই সারা দুপুর তপ্ত রোদে ঘাম ঝরিয়ে
কাহার সাথে পিঠ ঠেকিয়ে পার্কে বসে হৃদয়-হৃদয় খেলেছিলে।

আজকে তুমি কাহার সাথে মেলায় ঘুরে রঙিন চুড়ি কিনেছিলে;
জানতে চাই দু’জন মিলে মেলার ভীড়ে কতটা পথ পাড়ি দিলে;
আজকে তুমি কাহার সাথে রঙিন ঘুড়ি উড়িয়েছিলে জানতে চাই;
জানতে চাই জানতে চাই দু’হাত ভরে কতটা সুখ ধরেছিলে;
আজকে তুমি দু’চোখ ভরে কতটা সুখ দেখেছিলে জানতে চাই।।


ভালোবাসা
.

আহা রে ভালোবাসা ! ফুলের পাপড়ির মতোন নরম কোমল;
পরাণের ক্ষতগুলো কেমন জানি জাদুর মতোন সব মিলায়ে যায়।

হায় রে ভালোবাসা ! ভাঙা কাঁচের চিকন ধারাল কোণ;
বুকের মধ্যে খচখচ,পরাণটা কাইটা ফালি ফালি হইয়া যায়।


পণ
.
তিন যুগ পার করে আজ এই কলি যুগে তোর জালে জড়িয়ে গেলাম;
আমারে ফান্দে ফেলে দেবতার বর কত সহজেই কেড়ে নিলি।
আমার স্বর্গ পুড়ে ছাই হলো নরকের আঁচে।

তবু তোর কাছে করা পণ আজও ভাঙি নাই;
ভরা চান্দের জ্যোৎস্নার মন্তর, আসমান-ভাঙা বৃষ্টির মন্তর—
তোরে ছাড়া আর কেউরে শিখাই নাই।

আরো পড়তে পারেন

আরণ্যক শামছ-এর একগুচ্ছ কবিতা

প্রান্তিক কবি আমি এক নির্জনে পড়ে থাকা প্রান্তিক কবি। যেন সমাজতাত্ত্বিক সীমারেখার শেষপ্রান্তে ঝুলে থাকা এক পরিত্যাক্ত পলিথিন ব্যাগ। এখানে লুকিয়ে রেখেছি ক্ষুধা, দারিদ্র্য, ভগ্নস্বাস্থ্য, অসাম্য, অশিক্ষা ও মানুষের ছলাকলার ইতিহাস। আমি গাণিতিক ধারণার বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা এক অনস্তিত্বের অপ্রয়োজনীয় সংযুক্তি। তবে জিপসিদের মত আমিও দাঙ্গা বাঁধিয়ে দিতে পারি। আমিও মাটির ঘ্রাণ থেকে জেনে নিতে….

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

error: Content is protected !!