Author Picture

একগুচ্ছ কবিতা

কায়সার আহমদ

মুরারীর পোড়া চোখে
.
নিরব নদীর জলে
মানুষেরা ক্ষয়ে যায় ক্ষীণ করুণ রোদে,
সঙ্গম সভ্যতা আর আনন্দের খরস্রোত
শেষ হয় সন্ধ্যায়
মৃত কেয়া গাছে; মেঘ আর জোৎস্নার সাথে
খেলে গর্ভবতী ভাদ্রের কামার্ত কুকুর,
সমুদ্রের নোনা তটে পড়ে আছে—
অস্তিত্ত্বের ভাঙ্গা নৌকা।


জন্মভোর
.
ঘড়ির কাটায় মৃত্যুর কনা!
জন্মভোরে বৃষ্টির ফোটা
পড়েছিল কোনো ডুমুরের গায়ে,
সাপের মত শীতল চাঁদ দেখলে
ভুল মনে হয় নারীর যৌবন।

মেঘের উল্লাস, নদীর নগ্ন খেলা-
স্মৃতির ছাইচাপা জলের আগুনে,
ঘুম ভাঙলেই নিজেকে দেখি
মৃত্যু সন্ধ্যায় হলুদ রোদে।


বাদামী নবান্ন
.
নকশি নেকাব খুলে ফেলো
দেখি তোমার নাচের মুদ্রায়
শব্দের সোনালী রং চমকায় কিনা,
শিশির জড়ানো রাত্রি নেমেছে
ভিজে গেছে ঋতুবতী ঘাসের শরীর;
পাহাড়ে থমকে গেছে হলুদ নিদ্রা।

দেখি তোমার উড়ন্ত নিক্কনের ফাঁকে
বাদামী নবান্ন আসে কিনা।

আরো পড়তে পারেন

আজাদুর রহমানের একগুচ্ছ কবিতা

সবুজ স্তন প্রচুর নেশা হলে দেখবেন— গাছগুলো বৃষ্টি, পাতার বদলে বব চুল, কী ফর্সা! তার বাহু, উরু ব্যাঞ্জনা, জলভারে নুয়ে আছে সবুজ স্তন। নেশা এমনই এক সদগুন যে, মাঝরাতে উড়ে উঠবে রাস্তাগুলো আকাশে মুখ দিয়ে আপনি বলছেন— আমাদের একটা পৃথিবী ছিল, ঠিক চাঁদের মত গোল। চুর পরিমাণ নেশা হলে, আপনার পা থেকে অহংকারী পাথর খসে….

গাজী গিয়াস উদ্দিনের একগুচ্ছ কবিতা

ক্লান্তির গল্প যারা উপনীত সন্ধ্যে বেলায় ফিরে দেখো দিন মলিন স্বপ্ন – ধূসর জীবন, প্রখর রোদের শায়ক ক্রীড়া প্রাচুর্যে আত্মহারা ছিলে স্বাধীন একদিন, পশ্চিম বেলা চেয়ে চেয়ে আজ শেষ করো ক্লান্তির গল্প।   ছড়ানো বিদ্রুপ সাপের চুমোতে কোথা বিষ হিংস্র নিশ্বাসে তোমার গরল বিশ্বাসে আমাকে পাবে জিয়ল সরল। রুক্ষতা ছেঁটে ফেল – চেহারা কমনীয় সব….

বিপিন বিশ্বাসের একগুচ্ছ কবিতা

শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি শূন্যতায় বাজে প্রণবধ্বনি আড়ালে যার মহাজাগতিক রশ্মির চারণভূমি প্রতিবন্ধকতাকে পাশকাটিয়ে নিমগ্ন বিশ্বের স্বরূপ দেখি ধ্যানের স্তরে। মায়ার কায়া ঝেড়ে ফেলে সত্যকে চিনি আপন করে জ্যোতির্ময় জেগে আছে দীপ্ত শিখার আপন জলে । মূল্যবোধের সলতে টাকে মারতে চাই না দিন-দুপুরে অন্ধকারে আলোক রেখা সদাই খোঁজি হৃদ মাঝারে।   জীবনের ধর্ম এই জীবন মা….

error: Content is protected !!