অনুবাদ

হারানো দিনের সমুদ্র

মার্কেস এই বঙ্গদেশে কখনো এসেছিলেন কিনা জানা নেই, তবে কারিবীয় সাগর পাড়ে বসে তিনি বঙ্গোপসাগরের কথা ভেবেছেন। ‘হারানো দিনের সমুদ্র’ উপাখ্যানে কারিবীয় সাগরের পরিবেশ বিপর্যয়কালে আলো ঝলমল বঙ্গোপসাগরের রোদেলা দুপুরের কথা স্মরণ করেছেন তিনি। গল্পের শেষে খানিকটা যাদু বাস্তবতারও দেখা মেলে। জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে, সাগরটা কেমন ফুঁসে উঠল। সাগরের ঢেউ শহরে ভারী আবর্জনা বয়ে….

শতভাগ যৌনশিল্প বিষয়ে লেখার আনন্দ পেতে চাই

জেফ্রি চসার থেকে হলিংহার্স্ট পর্যন্ত প্রায় সব লেখকই যৌনতা বিষয়ে বলেছেন যে, ‘যৌনতা আমাদের আবেগ, প্রবৃত্তি এবং নৈতিকতা প্রকাশ করে।’ এ নিয়ে লেখক গ্যারেথ গ্রিনওয়েলের প্রশ্ন, ‘কেন যৌনতা নিয়ে না লিখে অন্য কিছু নিয়ে লিখেন?’ ইংরেজি ভাষার লেখকদের দৃঢ় বিশ্বাস ‘যৌনতা বিষয়ে খুব ভালোভাবে লেখা একেবারেই অসম্ভব ব্যাপার। অথবা, অন্ততপক্ষে অন্যান্য বিষয় থেকে এ নিয়ে….

বিদায়

চিঠিতে কোন নামও ছিল না আর কোন ঠিকানাও ছিল না— হাতে লেখা একটি চিরকুট, খামটাও অতিসাধারণ। গুরু দরজা খোলার সময় যদি পাপোষ না সড়াতো তা হলে হয়ত ওটা ওর চোখের গোচরই হত না। সে সব সময় বাইরে যাওয়ার সময় পাপোষটা ভিতরে রেখে দরজায় তালা লাগিয়ে যায়, কারণ হচ্ছে বাইরে থাকলে পাপোষটা চুরি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা….

প্লেগের প্রকৃত জার্নাল

The Guardian পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে (১৯শে মে ২০২০) “Beyond Daniel Defoe: the real journals of the plague year” শিরোনামে Sam Jordison-এর প্রকাশিত প্রবন্ধ অবলম্বনে লেখাটি তৈরি করেছেন কায়সার আহমদ ড্যানিয়েল ডিফোর ‘A Journal of the Plague Year’ পড়ে যদি আপনার মনে হয় যে যারা ১৬৬৫-১৬৬৬ সালের ঘটনাবলীর প্রত্যক্ষদর্শী তাদের কাছ থেকে আপনি আরো বেশী কিছু….

দ্যা মাস্ক অব আফ্রিকাঃ আফ্রিকান বিশ্বাসের খন্ডাংশ

প্রথম পর্বঃ কাসুভি’র সৌধ (৬) রোমান ঐতিহাসিক টেসিটাস (ইতিহাসে একাধিক টেসিটাস নামের ইতিহাসবিদ পাওয়া যায়। তবে রোমান একজনই) এর মতে, প্রাচীন জার্মানিক লোকেরা বিশ্বাস করতো শ্রষ্টাকে কোন মন্দিরে কিংবা চার-দেয়ালের মধ্যে আটকে রাখা এক ধরনের অবমাননার সামিল। বরং মানুষের উচিত নদী, বন কিংবা মাটিতে যে স্থানগুলো শ্রষ্টারই প্রতিরূপ হয়ে উঠে তেমন উন্মুক্ত স্থানে তার উপাসনা….

নেরুদার সঙ্গে নির্বাসিত জীবন

মূল: মাতিলদে উরুটিয়া । অনুবাদ: আন্দালিব রাশদী [বিশ শতকের সর্বাধিক পঠিত কবি চিলির পাবলো নেরুদা (জন্ম ১২ জুলাই ১৯০৪—মৃত্যু ২৩ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩)। মাতিলদে উরুটিয়া (জন্ম ৩০ এপ্রিল ১৯১২—মৃত্যু ৫ জানুয়ারি ১৯৮৫)। পাবলো নেরুদার তৃতীয় স্ত্রী, দাপ্তরিকভাবে তাঁদের দাম্পত্যকাল ১৯৬৬ থেকে নেরুদার মৃত্যু পর্যন্ত। চিলির ডানপন্থী সরকারের হাতে নিগৃহীত ও লাঞ্ছিত পাবলো নেরুদা তখন দেশান্তরে। সেবিকা-গায়িকা মাতিলদের সঙ্গে….

error: Content is protected !!