Author Picture

খন্দকার রেজাউল করিম

শিক্ষক, গবেষক, লেখক। তাঁর শিক্ষকতা জীবনের শুরু ১৯৭৫ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। ১৯৭৮ সালে উচ্চশিক্ষার জন্য আমেরিকা যান। ১৯৮৩ সালে ইউনিভার্সিটি অব অরিগন থেকে পদার্থবিদ্যায় ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপরে ৩০ বছর কাটিয়েছেন আমেরিকার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষনা ও শিক্ষকতার কাজে। বর্তমানে তিনি আমেরিকার ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির ইমিরেটাস প্রফেসর।
ড. করিম গবেষনার কাজে জড়িত ছিলেন নাসা, মার্কিন জাতীয় বিজ্ঞান সংস্থা, মার্কিন এনার্জি সংস্থা, ন্যাটো, টোকোমাক ফিউশন টেস্ট রিয়্যাক্টর এবং আরও অনেক প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞান প্রকল্পে। তাঁর ৮০টি গবেষনা-প্রবন্ধ রয়েছে। এর বাইরে লিখেছেন দুটি বই- Quantum Nursery Rhymes ও কোয়ান্টাম রাজ্যে ডালিম কুমার।

আঁচল-ভরা বই

বই-মেলা থেকে আঁচলভর্তি বই নিয়ে এক কিশোরী হাসি মুখে বাড়ি ফিরছে। দৈনিক পত্রিকায় এই ছবিটি দেখে চোখ জুড়িয়ে গেলো। নয়ন ভরা জল, আঁচল ভরা ফুল, এ সব আমার চেনা। কিন্তু আঁচল ভরা বই ? কিশোরীর ভীরু মনে প্রেমের মুকুলের পাশাপাশি এবার জ্ঞানের মুকুলও ফুটবে নাকি? এ মেয়ের বর জুটবে তো? রবীন্দ্রনাথের ‘শেষের কবিতা’ উপন্যাসের নায়ক….

গরুর পরিবার পরিকল্পনা

‘‘সুধা হতে সুধাময় দুগ্ধ তার ; দেখে তারে পাপ ক্ষয় হয়, মাতৃরূপা, শান্তিস্বরূপিনী, শুভ্রকান্তি, পয়স্বিনী।’’ রবীন্দ্রনাথ এ ভাবেই গরুর গুন কীর্তন করেছেন। শুধু গরু না, আমার ধারণা কিছু কিছু মানুষ দেখেও পাপ ক্ষয় হতে পারে- যেমন বুড়ি মা খোয়া ভাঙছেন, বুড়ো রিক্সা চালক, গার্মেন্টস কারখানার কিশোরী শ্রমিক, বাড়ির কাজের মেয়ে। আর কাদের দেখলে পাপ বেড়ে….

জনৈক নিরামিষ-ভোজী বন্ধুর প্রতি

‘‘নিরামিষ খেয়ে জীবন কাটালে কোনো ক্ষতি নেই। তবে শুধু নিরামিষ ভোজন মানুষের বায়ু-পথে প্রচুর গ্যাস, এবং হৃদয়ে অকারণ অহংকার সৃষ্টি করে।’’ (Sir Robert Hutchinson, in an address to the British Medical Association.) ব্যাঙ্ খায় পোকা, সাপ খায় ব্যাঙ্, সাপকে খায় আরো বড় সাপ, বড় সাপকে খায় নেকড়ের দল, নেকড়েকে মারতে পারে বনের রাজা সিংহ। সিংহকে….

সেলিম আল দীন

‘এ মণিহার আমায় নাহি সাজে… তাই তো বসে আছি, এ হার তোমায় পরাই যদি তবেই আমি বাঁচি।’ জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসে এক শিক্ষকের বাসায় শান্তিনিকেতন ফেরত এক নবীন গায়ক ‘এ মনিহার আমায় নাহি সাজে’ গানটি গাইছিলেন। সবাই চোখ বুঁজে গান শুনছে, শুধু একজন শ্রোতা ক্রমাগত তার পিঠ চুলকাচ্ছে। আমি তখন নবীন যুবক, এমন কাঁচা বয়েসে এ….

চাষা

‘‘এবার ফিরাও মোরে, লয়ে যাও সংসারের তীরে, হে কল্পনে, রঙ্গময়ী! দুলায়োনা সমীরে সমীরে তরঙ্গে তরঙ্গে আর, ভুলায়োনা মোহনী মায়ায়।’’ বেগুন, মরিচ, এবং টোম্যাটো গাছ লাগিয়েছিলাম। হৃদয়ের উত্তাপ দিয়ে ওদের বড় করেছি। আগাছা পরিষ্কার করে প্রতিদিন পানি ঢেলেছি ওদের মাথায়। আর অপেক্ষা করেছি। ফসলের অপেক্ষা। সূর্যের আলো, বাতাসের কার্বন ডাই অক্সাইড, আর আমার ঢালা পানি দুই….

সতী

অস্ট্রলিয়ার আদিবাসীরা এখনো আটকে আছে প্রস্তর যুগ আর লৌহ যুগের মাঝামাঝি। নৃতত্ববিদ লুইস মরগ্যান ওদের বিবাহ সংক্রান্ত আইনকানুন এইভাবে ব্যক্ত করেছেন : ইপ্পাই বিয়ে করবে কাপোটা, আর কাউকে নয়। কুমবো বিয়ে করবে মাটা, আর কাউকে নয়। মুরী বিয়ে করবে বুটা, আর কাউকে নয়। কুব্বী বিয়ে করবে ইপ্পাটা, আর কাউকে নয়। গোটা পুরুষ জাতিকে ইপ্পাই, কুমবো,….

ত্রিভুজ প্রেমের মামলা

অসতী অলিভ পাহড়ের মাথায় অসতী মেরি ম্যাগডিলানকে খুন করতে যাচ্ছিল হিংসায় উন্মত্ত একদল লোক। পাশের মন্দির থেকে এক দীপ্ত যুবক বেরিয়ে এসে মেয়েটিকে আগলে ধরলো। ‘‘ও একটা বাজারের মেয়ে, বেশ্যা, ওকে পাথর ছুড়ে মারতে হবে, পুরানো বাইবেলের নির্দেশ।’’ যুবকটি বললো: ‘‘He that is without sin among you, let him first cast a stone at her….

ত্রিভুজ প্রেমের মামলা

মামলার রায় “ওগো নিষ্ঠুর, ফিরে এসো হে! আমার করুন কোমল, এসো! আমার মুখের হাসিতে এসো হে, আমার চোখের সলিলে এসো , আমার শয়নে স্বপনে বসনে ভূষণে নিখিল ভুবনে এসো!” -রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নারীনির্যাতন, প্রেমিকার গৃহে অগ্নিসংযোগ, এবং একজন নারী ও একটি কুকুরের জীবন বিপন্ন করার অভিযোগে কেভিনের বিচার চলছে এক মাস ধরে। কাল মামলা শুনানির শেষ….

ভালোবাসার কারাগারে

‘বঁধুয়া আমার চোখে জল এনেছে হায়, বিনা কারণে। এ মনে যতন করে বিফল প্রেমের বীজ বুনেছে হায়, বিনা কারণে। আমি বাদী, আমি বিবাদী, কোথা উধাও অপরাধী। কেন সেই রূপের আগুন বুকে জ্বেলে আছি বেঁচে হায়, বিনা কারণে।’ হঠাৎ একদিন কেভিনের কপালটা গেলো খুলে। সুজান ফোন করেছে, ‘কাল থেকে আমাদের বাড়িতে বিদ্যুৎ যোগাযোগ বন্ধ। বৈদ্যুতিক প্যানেলটা….

ত্রিভুজ প্রেমের মামলা

বিউটি অ্যান্ড দ্য বিস্ট   সুজান এবং ডেভের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়নি। পুরানো বাড়িটার মালিকানা এখনো দুজনের নামে। ছোট্ট দুই কামরার সস্তা বাড়িটার জরাজীর্ণ দশা, কখন ভেঙে পড়া তার ঠিক নেই। ডেভ বাড়িটার মেরামতের কাজে হাত লাগায়, মর্টগেজের টাকা প্রতিমাসে পরিশোধ করে। এতে ডেভের আপত্তি নেই; বিবাহ বিচ্ছেদ হলে ছেলে এবং স্ত্রীর ভরণপোষণের জন্যে হয়তো আদালত….

error: Content is protected !!