Author Picture

শাহাজাদা বসুনিয়ার একগুচ্ছ কবিতা

শাহাজাদা বসুনিয়া

এবড়োখেবড়ো- ৬১
.
তুমি যদি শরৎকালে আমার জীবনে আসতে
আমি গ্রীষ্মকে তাড়িয়ে দিতাম হাসিমুখে
যদি তোমাকে এক বছর কাছে পেতাম
আমি মাসগুলোকে ঘুরিয়ে দিতাম
যদি শতশত বিলম্ব হতো
আমি আমার হাতে তাদের গণনা করতাম
যদি নিশ্চিত হতাম এ জীবন শেষ হয়ে গিয়েছিল
তাহলে জীবনকে একটি ছিদ্রের মতো ফেলে দিতাম
অতঃপর অনন্তকালের স্বাদ গ্রহণ করতাম
এখন সময়ের অনিশ্চিত ডানার দৈর্ঘ সম্পর্কে
আমি অজ্ঞ, শুধুই আমাকে গবলিন মৌমাছির মতো
তাড়িত করে অনিশ্চিয়তায়। সময় বড় নির্দয়।

এবড়োখেবড়ো- ৬২

যোগাযোগের অনুমতি ছিল অবিরাম
ঘন্টা অতি দ্রুত স্খলিত, ঘন্টা হবে
লোভী হাতে আঁটসাঁট করা
দুটি ডেকের মুখগুলি পেছনে ফিরে তাকায়
বিপরীত জমিতে-সীমানায় আবদ্ধ
সূর্য হিসাব মতো বিদেশে চলে গেল
যেন কোন আত্মা অয়নকাল অতিক্রম করেনি
বক্তৃতা দ্বারা অপবিত্র ছিল দুর্লভ
প্রতিটি গীর্জা-মন্দির-মসজিদ সিল করা
সময় উন্মুক্ত, যোগাযোগের অনুমতি ছিল
আমার জন্য একটি গ্রীষ্মের দিন উন্মুক্ত ছিল
সংগে ছিল খুব বিশ্রী শো ও নৈশভোজ।

এবড়োখেবড়ো-৬৩

তুমি আমাকে রেখে গেলে দিশাহীন নিশানে,
রেখে গেলে দুটি মধুর উত্তরাধিকারী
তুমি আমাকে রেখে গেলে বেদনার সীমান্তে
যা সমুদ্রের মতো বিশাল-অনন্তকাল।
এবং সময়ের মধ্যে তোমার চেতনা ও আমি
পরিবর্তন ও আমার মন নড়বড়ে
জীবন যখন প্রশ্ন করে তার মহিমা পরিপূর্ণ কিনা
তখন সময়ের মধ্যে দুটি মধুর উত্তরাধিকার
তোমার চেতনা ও আমার অতীন্দ্রিয় জেগে থাকা।

এবড়োখেবড়ো-৬৪

আমি সর্বদা ভালোবাসবো-ভালোবাসা
সেই প্রেমই আমার পূর্ণ জীবন,
এবং এখানে জীবনের অমরত্ব রয়েছে
তোমার বুকের মধ্যে আমাকে লুকিয়ে রাখো
আমিও তোমাকে নিজের বুকে লুকিয়ে রাখি
অতঃপর আমরা সন্দেহহীন
আর বাকীটা ফেরেস্তারা জানেন
আমি যে সর্বদা ভালোবাসতাম
আমি প্রমাণ এনেছি তোমার মতোই সন্দেহাতীত
আমরা দুজনই এখনও একাকীত্ব অনুভব করি।

আরো পড়তে পারেন

মঈনুস সুলতানের একগুচ্ছ কবিতা

ঋষিবৃক্ষের রূপালি ছায়ায় . ভালো হয়েছে, এসেছো আজ গল্ফ ক্লাবে বসেছো কার্ড টেবিলে পরদেশী তিন যুবকের সাথে বলছো কথা মৃদু স্বরে শোভণ সদভাবে; কালকেও দেখেছি তোমাকে মামবা পয়েন্টে পানশালায় বসে ছিলে ফ্রেঞ্চ উইন্ডোর পাশে একা, ঘুরে ফিরে ফ্রিটাউনের হরেক চবুতরায় নানা মাইফেলে বারবার আমাদের হয়ে যাচ্ছে দেখা; মোমের আলোয় অদৃষ্ট ছুঁয়ে কাল বেজায় বিষন্ন ছিলে….

মফিজুল ইসলাম মান্টুর একগুচ্ছ কবিতা

শোকের অসমাপ্ত গল্প . গল্পটায় তো সোনালী সকালের কথা লেখা হয়নি, নেই উজ্জ্বল আলোর কোন আলেখ্যগাঁথা, গল্পটায় আনন্দের বদল বেদনার ক্ষত বয়ে যাচ্ছে, রাত্রির দুঃস্বপ্নগুলো যেনো মিথ্যেই হয়, যেনো স্মরণের পাতায় মুছে যায় যত মিথ্যে বেসাতি, সদ্যজাত ভোরের জানালায় তাকিয়ে প্রতিদিন, কোন চিঠির বারতা কি আসছে আজ? কি কথা থাকে তাহলে- শোকের গল্পটা অসমাপ্তই রেখে….

মামুন আজাদের একগুচ্ছ কবিতা

ইহা একটি বিপ্লবের খাঠি ইস্তেহার . তিনি মায়ের কাছ থেকে টাকা চেয়ে নিলেন যেমনটা নেন প্রায়ই তার মতো আরো যারা ছিলেন কেউ বন্ধু,বোন ব্রাদার ইত্যাদির কাছ থেকে নেন যেমনটা উনারা নেন প্রায়ই তারা সবাই আসলেন চা খেলেন সাথে সিগারেট খুব সন্তর্পনে বায়ু ত্যাগ করে বললেন, ‘বিপ্লব’ ‘বিপ্লব’ !! প্রকৃতি পাঠ . আমরা পাঠ করবো প্রকৃতি….

error: Content is protected !!