Author Picture

ক্ষুধা এবং করোনা ভাইরাস

খন্দকার রেজাউল করিম

ক্ষুধা করোনা ভাইরাসের মতো সংক্রামক ব্যাধি নয় হলে ভালোই হতো, এতদিনে ক্ষুধা-রোগের একটা সমাধান
বের হয়ে যেত। শিশুর পেটে যে ক্ষুধার আগুন জ্বলে তা থেকে আমি-আপনি নিরাপদ, ও আগুন আমাদের পেটে ছড়িয়ে পড়ে না।

২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে চীনে প্রথম করোনা ভাইরাস বাদুড় থেকে মানুষের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে। ২০২০ সালের জানুয়ারী মাসে চীনের উহান প্রদেশে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একজন ৬১ বছর বয়স্ক লোক প্রথম মৃত্যুবরণ করেন। তারপরে ইতালি, ফ্রান্স, জার্মানি – এই রোগ বিশ্বজুড়ে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে থাকে। সেই সাথে মরণ। আজ পৃথিবীর প্রায় সবদেশে এই রোগ মৃত্যু পরোয়ানা নিয়ে হাজির হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে বিজ্ঞানীরা যুদ্ধ শুরু করে দিলেন। রাজনীতিবিদ, ধনবান, পুণ্যবান, ক্ষমতাবান
মানুষেরা তুলকালাম কান্ড বাধিয়ে বসলেন। কেন? কারণ, করোনা ভাইরাস ধনী-গরিব, শ্রমিক-রাজনীতিবিদ, পাপী- সাধু, জ্ঞানী-মূর্খ, রাজা-প্রজা বিচার করে না। পৃথিবীর দুই প্রতাপশালী দেশের প্রধান, ইংল্যান্ডের বরিস
জনসন, এবং আমেরিকার ডোনাল্ড ট্রাম্প, এই ভাইরাসের কবলে পড়ে হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে সময় কাটাতে বাধ্য হন। ওদিকে ‘ক্ষুধা ভাইরাস’ শুধু গরীবদেরই ধরে। যারা না খেয়ে মারা যায় তারা ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের নাম কখনো শোনেনি। আমেরিকার ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের প্রতিদিনের খরচ প্রায় ৮০ হাজার ডলার, দরিদ্র দেশে একজন ক্ষুধার্তকে দুবেলা ভরপেট খাওয়াতে লাগে ২ ডলার।

করোনা ভাইরাসে গত দুই বছরে পৃথিবীজুড়ে প্রায় ৫৩ লক্ষ লোক মারা গেছে, মৃতের সংখ্যা গড়ে প্রতিদিন ৭ হাজার জন। ‘ক্ষুধা রোগে’ পৃথিবীতে কতজন মানুষ প্রাণ হারায়? জাতিসংঘের খাদ্য এবং কৃষি (FAO, food and agriculture organization) দফতরের মতে প্রতিবছর পৃথিবীতে ক্ষুধায় মারা যায় প্রায় ৯০ লক্ষ মানুষ, মৃতের সংখ্যা গড়ে প্রতিদিন ২৫,০০০ জন, তার মধ্যে ৮,৫০০ জন শিশু। আর কোনো রোগে এতো বেশি লোক মরে না!

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে আমেরিকায় প্রথম করোনাভাইরাসে একজনের মৃত্যু হয়। করোনাজড়িত কারণে আজ পর্যন্ত (ডিসেম্বর ১০, ২০২১) আমেরিকার মৃত্যুসংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৮ লক্ষ, ভারতে প্রায় ৫ লক্ষ। করোনা ভাইরাসে গত দুই বছরে পৃথিবীজুড়ে প্রায় ৫৩ লক্ষ লোক মারা গেছে, মৃতের সংখ্যা গড়ে প্রতিদিন ৭ হাজার জন। ‘ক্ষুধা রোগে’ পৃথিবীতে কতজন মানুষ প্রাণ হারায়? জাতিসংঘের খাদ্য এবং কৃষি (FAO, food and agriculture organization) দফতরের মতে প্রতিবছর পৃথিবীতে ক্ষুধায় মারা যায় প্রায় ৯০ লক্ষ মানুষ, মৃতের সংখ্যা গড়ে প্রতিদিন ২৫,০০০ জন, তার মধ্যে ৮,৫০০ জন শিশু। আর কোনো রোগে এতো বেশি লোক মরে না! ‘ক্ষুধা রোগে’ মেয়েরা বেশি ভোগে। দরিদ্র, অশিক্ষিত, সুবিধা-বঞ্চিত, গর্ভবতী মায়েদের সাথে এই রোগ বিমাতাসুলভ আচরণ করে, এঁরা অনেকেই রক্ত-শূন্যতায় ভুগেভুগে অবশেষে মৃত্যুবরণ করেন। এদের মৃত্যুর শেষ দীর্ঘশ্বাসের শব্দ ক্ষমতাবানদের কানে পৌঁছায় না।

জাতিসংঘের হিসাব মতে পৃথিবীকে ক্ষুধামুক্ত করার জন্যে বছরে ৩০ বিলিয়ন ডলার খরচ করতে হবে। পৃথিবীর সাত কোটি ক্ষুধার্ত শিশুকে খাওয়াতে প্রতিবছর ৩.২ বিলিয়ন ডলার লাগার কথা। করোনার প্রকোপ থেকে আমেরিকার অর্থনীতিকে টিকিয়ে রাখা এবং গৃহবন্দী মানুষদের আর্থিক সাহায্যের জন্যে মার্কিন সরকার এ পর্যন্ড বরাদ্দ করেছেন প্রায় ৫,০০০ বিলিয়ন ডলার। ইউরোপের দেশগুলোও পিছিয়ে নেই।
২০২০ সালের জানুয়ারী মাসে ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশান (W.H.O) কোরোনাভাইরাস প্রতিরোধকে পৃথিবীজুড়ে ইমার্জেন্সি হিসাবে ঘোষণা করে। শুরু হয় ভ্যাকসিন আবিষ্কারের প্রতিযোগিতা। করোনাভাইরাসের সাথে বিজ্ঞানীদের লড়াই প্রশংসা করার মতো। পৃথিবীজুড়ে ওষুধ কোম্পানি, বিশ্ববিদ্যালয়, এবং গবেষণাগারের বিজ্ঞানীরা আদাজল খেয়ে লেগেছিলেন। করোনাভাইরাসকে ঠেকাবার মতো প্রায় ১২ টি ভ্যাকসিন এখন মানুষের শরীরে দেওয়া শুরু হয়েছে: Moderna, Pfizer-BioNT, BBIBP-CorV, CoronaVac, Covaxin, Sputnik V, Oxford- AstraZeneca, Convidicea, Johnson & Johnson vaccine, ইত্যাদি। আরো ৩০৮ টি ভ্যাকসিন ল্যাবরেটরিতে তৈরী করা হয়েছে, মানুষের উপরে ওদের প্রাথমিক পরীক্ষানিরীক্ষার পালা শেষ হওয়ার পথে।
মানুষের জীবন শুরু হয় ক্ষুধা এবং কান্না দিয়ে। পাকস্থলীকে বিজ্ঞানীরা দ্বিতীয় মস্তিষ্ক বলে মনে করেন।
যন্ত্রণার মোচড় দিয়ে সে সব সময় তার অস্তিত্বের কথা আমাদেরকে স্মরণ করিয়ে দেয়। পাকস্থলীকে খুশি
রাখতে সব প্রাণী সারা জীবন সংগ্রাম করে যায়। আইনস্টাইন একে এক দৌড় প্রতিযোগিতার সাথে তুলনা
করেছেন, যা আমাদের অনেক মানবিক অনুভূতিকে আচ্ছন্ন করে রাখে, ‌‌‘‘By the mere existence of his
stomach everyone is condemned to participate in that chase. The stomach might well be satisfied by such participation, but not man insofar as he is a thinking and feeling being.”

মানুষের ক্ষুধা কবে ইমার্জেন্সি হিসাবে গণ্য করা হবে? ক্ষুধা এক ভয়াবহ জৈবিক অনুভূতি। জঠর-জ্বালা
মানুষকে অনেক পাপ কাজ করতে বাধ্য করে। এই পাপ অনায়াসে ক্ষমা করা যায়। মানুষের ক্ষুধা নিবারণ করার চেয়ে বড় ধর্ম আর নেই। হজরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, ‘যার প্রতিবেশী ক্ষুধার্ত অথচ সে নিজে পেটপুরে খায়, সে মুসলমান নয়।’ যীশু বলেছেন, ‘যে ক্ষুধার্তের মুখে আহার যোগান দেয়, সে যেন ঈশ্বরের মুখেই খাবার তুলে দেয়।’ অনেকদিন অনাহারে থেকে ধ্যানমগ্ন বুদ্ধ একদিন মোক্ষ লাভ করেন। একটি মেয়ে দৌড়ে এসে তাঁর হাতে খাবারের থালা তুলে দেয়। মেয়েটিকে বুদ্ধদেব দেবীর আসনে বসিয়েছিলেন।

এক বছরের মধ্যে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের টিকা বের হয়ে গেল। যে কোনো ভাইরাসের মত করোনা ভাইরাসও পরিবর্তিত হয়ে বারে বারে নবরূপে আত্মপ্রকাশ করছে। বিজ্ঞানীরা তার সাথে পাল্লা দিয়ে নতুন নতুন টিকা আবিষ্কার করে চলেছেন। ক্ষুধার টিকা বের হবে কবে? ক্ষুধা যদি করোনা ভাইরাস হতো!

আরো পড়তে পারেন

রবীন্দ্র উপন্যাসে দাম্পত্য সংকট ও নীতিগর্হিত প্রেম

বাংলা সাহিত্যের পুরোধা ব্যক্তিত্ব রবীন্দ্রনাথের কবি সত্ত্বার প্রতিপত্তি সর্বগ্রাসী। ফলে তাঁর গদ্যকার বা ঔপন্যাসিক পরিচয় যতটা দ্যুতিময়, সাহিত্যের বিচারে তার উজ্বল্য ততোধিক দীপ্তিময়। রবীন্দ্রনাথকে বাংলা ভাষার অগ্রসরমান মনস্তাত্ত্বিক উপন্যাসের জনক বলা যায় সহজে। রবীন্দ্রনাথ ঐতিহাসিক ও কাহিনী নির্ভর উপন্যাস লিখে যাত্রা শুরু করলেও (বৌ ঠাকুরানীর হাট, রাজর্ষী) অতিদ্রুত চরিত্রের মনোজগতের বিশ্লেষণধর্মী গদ্যে ফিরে আসেন ।….

মনরোর উড়ন্ত স্কার্ট

পঞ্চাশের দশকে সাংস্কৃতিক প্রতীকে পরিণত হয়েছিলেন মার্কিন অভিনেত্রী, মডেল ও কণ্ঠশিল্পী মেরিলিন মনরো। বলা যায় প্রায় এক দশক মার্কিন সাংস্কৃতিক দুনিয়া শাসন করেছেন তিনি। ১৯৬২ সালে মৃত্যুর পর তার জনপ্রিয়তা আরো বেড়ে যায়—তিনি হয়ে ওঠেন ‘পপ কালচার’-এর সমার্থক। তাকে নিয়ে আগ্রহের কমতি নেই সর্বস্তরের মানুষের। ষাট থেকে আশির দশক পর্যন্ত বিস্তৃত ‘সেক্সচুয়াল রেভুলেশন’ বা ‘যৌন….

এসব হচ্ছে কী..?

২৬ সেপ্টেম্বর দেশের প্রধান সংবাদপত্রগুলোতে বাংলাদেশ সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের সিলেট জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী তুষার কান্তি সাহার নাগরিকত্বের প্রশ্ন নিয়ে খবর বেরিয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি ভারতের নাগরিক। ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করে তিনি প্রতি সপ্তাহে ছুটির দিনে ভারতে যাওয়া আসা করেন। প্রশ্ন উঠেছে তিনি অন্য দেশের নাগরিক হয়ে বাংলাদেশে সরকারি চাকুরি করেন কীভাবে? তুষার….

error: Content is protected !!