Author Picture

ত্রিভুজ প্রেমের মামলা

খন্দকার রেজাউল করিম

বিউটি অ্যান্ড দ্য বিস্ট

 

সুজান এবং ডেভের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়নি। পুরানো বাড়িটার মালিকানা এখনো দুজনের নামে। ছোট্ট দুই কামরার সস্তা বাড়িটার জরাজীর্ণ দশা, কখন ভেঙে পড়া তার ঠিক নেই। ডেভ বাড়িটার মেরামতের কাজে হাত লাগায়, মর্টগেজের টাকা প্রতিমাসে পরিশোধ করে। এতে ডেভের আপত্তি নেই; বিবাহ বিচ্ছেদ হলে ছেলে এবং স্ত্রীর ভরণপোষণের জন্যে হয়তো আদালত তাকে আরো বেশি টাকা দিতে বাধ্য করতো।
সুজানের স্বামী ডেভকে ঘিরে কেভিনের মনে একটা তীব্র কৌতূহল ছিল। সুজান কেনই বা ডেভকে বিয়ে করেছিল, কেনই বা এখন আলাদা হয়ে বাস করছে, আর কেনই বা এমন চরিত্রহীন স্বামীর বিরুদ্ধে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা ঠুকছে না! সুজানের তো রূপ, যৌবন, স্বাস্থ্য, এবং পানিপ্রার্থী পুরুষ-ভক্তের কোনো অভাব নেই।
গাড়ির এয়ার কন্ডিশনের গোলযোগ ডেভের সাথে পরিচয় করার সুযোগটা করে দিলো। সকালবেলা কেভিন ডেভস অটোমোবিলের উদ্দেশ্যে গাড়ি নিয়ে বের হচ্ছিলো। তখনি ক্যারোলের ফোন এলো, ‘হ্যালো মিস্টার এল এ, আমি মিসেস এল এ বলছি। তুমি কি আজ তোমার গাড়ি মেরামতের জন্যে ডেভের দোকানে যাচ্ছ? আমাকে সঙ্গে নিবে? পরীক্ষা শেষ হয়ে গেছে, হাতে কোনো কাজ নেই, একেবারে বোর হয়ে গেছি।’
‘এই যে ডেভ, পরিচয় করিয়ে দিই’, দোকানে পৌঁছে ক্যারোল বললো, ‘আমাদের স্কুলের নতুন শিক্ষক কেভিন। উনার গাড়ির এসি কাজ করছে না। তাই এসেছি তোমার দোকানে।’
‘কোনো ব্যাপার নয়’, ডেভ জানালো, ‘আজ বিকালেই গাড়িটা ফেরত পাবে।’
ডেভকে দেখে কেভিন একেবারেই মনমরা হয়ে পড়লো। মোটাসোটা ভুঁড়িওয়ালা মধ্যবয়েসী এক লোক। অমার্জিত কথাবার্তা। বিয়ারের বোতলে চুমুক দিতে দিতে কথা বলছে। সুজানকে কোনোভাবেই এর সাথে মিলানো যায় না। সুজান সবসময় বই পড়ে, এই দোকানের টেবিলে কিছু সস্তা অশ্লীল ম্যাগাজিন পড়ে আছে। কেভিনের শরীরটা ঘিনঘিন করে উঠলো। বিউটি আন্ড দ্য বিস্ট। কি দেখে এর প্রেমে পড়েছিল সুজান?

মোটাসোটা ভুঁড়িওয়ালা মধ্যবয়েসী এক লোক। অমার্জিত কথাবার্তা। বিয়ারের বোতলে চুমুক দিতে দিতে কথা বলছে। সুজানকে কোনোভাবেই এর সাথে মিলানো যায় না। সুজান সবসময় বই পড়ে

সুজান এবং তার ছেলে জেসির সাথে কেভিনের প্রতিদিন বেসবল ক্যাম্পে দেখা হয়। খ্যাতনামা খেলোয়াড়দের লেখা বই এবং ছবি উপহার দিয়ে কেভিন ছেলেটির মন জয় করে ফেলেছে। এমনকি সুজানের পোষা কুকুরটা পর্যন্ত কেভিনের ভক্ত হয়ে পড়েছে। ছয় মাস কেটে গেল, কিন্তু সুজানের মন যেন ‘‘সহস্র বৎসরের সাধনার ধন।’’ তবে অবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে, ছেলে সমেত কেভিনের সাথে রেস্টুরেন্টে খেতে যেতে সুজানের আর তেমন আপত্তি নেই। ইদানিং সুজান বেশ সেজেগুজে থাকে, পোশাক থেকে দামি পারফিউমের গন্ধ ভেসে আসে। আগে সুজান ক্যারোলের দোহাই পাড়তো, তার মতো বিবাহিত মেয়ের পিছনে না ঘুরে ক্যারোলের পিছনে ঘোরার পরামর্শ দিতো। এখন সেদিন গেছে। ছেলেবেলার লক্ষী মেয়ে সুজান ছলনাময়ী এক নারীতে পরিণত হয়েছে। প্রেমের বড়শিতে আটকে গেছে কেভিন, ধীরে ধীরে সুতা ছেড়ে সুজান রুই মাছের মতো ওকে খেলাচ্ছে।
ক্যারোল তিন মাস হলো UCLA তে পড়তে লস এঞ্জেলস চলে গেছে। পড়াশুনা নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত, তবুও কেভিনের সাথে মাঝে মাঝে ফোনে কথা হয়, ‘হ্যালো, মিস্টার এল এ, কেমন আছো? আমি মিসেস এল এ বলছি।’
‘এতদিনে একটা বয়ফ্রেন্ড জোগাড় করেছো নিশ্চয়।’
‘পড়াশুনার চাপে স্নানাহার বন্ধ, শরীরে ধুলা উড়ছে। প্রেম করার সময় কোথায়? সেমিস্টার প্রায় শেষ হয়ে এলো। বাড়ি ফিরলে তোমার সাথে দেখা হবে, ভাবতেই ভালো লাগছে।’
প্রতি রবিবার সকালে ডেভ ছেলে জেসিকে নিয়ে যায়, রাত দশটায় ফেরত দিতে আসে। ডেভের সাথে ডেভের বর্তমান গার্লফ্রেন্ড জেনাও মাঝে মাঝে আসে। জেনা এবং নিজের পিতার কাছে জেসি তেমন সহজ হতে পারে না। ওকে খুশি করার জন্যে ডেভ যথেষ্ট পরিশ্রম করে, পার্কে যেয়ে ঘুড়ি আর বেলুন ওড়ায়, দোকানে দোকানে ঘুরে জেসির পছন্দের সবকিছু কিনে দেয়। কেভিনও এই দিনটির অপেক্ষায় বসে থাকে। সারাদিন সুজানের সাথে ঘোরার দিন, মনের কথা একটু একটু করে বলার দিন।

আরো পড়তে পারেন

সতী

অস্ট্রলিয়ার আদিবাসীরা এখনো আটকে আছে প্রস্তর যুগ আর লৌহ যুগের মাঝামাঝি। নৃতত্ববিদ লুইস মরগ্যান ওদের বিবাহ সংক্রান্ত আইনকানুন এইভাবে ব্যক্ত করেছেন : ইপ্পাই বিয়ে করবে কাপোটা, আর কাউকে নয়। কুমবো বিয়ে করবে মাটা, আর কাউকে নয়। মুরী বিয়ে করবে বুটা, আর কাউকে নয়। কুব্বী বিয়ে করবে ইপ্পাটা, আর কাউকে নয়। গোটা পুরুষ জাতিকে ইপ্পাই, কুমবো,….

ত্রিভুজ প্রেমের মামলা

অসতী অলিভ পাহড়ের মাথায় অসতী মেরি ম্যাগডিলানকে খুন করতে যাচ্ছিল হিংসায় উন্মত্ত একদল লোক। পাশের মন্দির থেকে এক দীপ্ত যুবক বেরিয়ে এসে মেয়েটিকে আগলে ধরলো। ‘‘ও একটা বাজারের মেয়ে, বেশ্যা, ওকে পাথর ছুড়ে মারতে হবে, পুরানো বাইবেলের নির্দেশ।’’ যুবকটি বললো: ‘‘He that is without sin among you, let him first cast a stone at her….

ত্রিভুজ প্রেমের মামলা

মামলার রায় “ওগো নিষ্ঠুর, ফিরে এসো হে! আমার করুন কোমল, এসো! আমার মুখের হাসিতে এসো হে, আমার চোখের সলিলে এসো , আমার শয়নে স্বপনে বসনে ভূষণে নিখিল ভুবনে এসো!” -রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নারীনির্যাতন, প্রেমিকার গৃহে অগ্নিসংযোগ, এবং একজন নারী ও একটি কুকুরের জীবন বিপন্ন করার অভিযোগে কেভিনের বিচার চলছে এক মাস ধরে। কাল মামলা শুনানির শেষ….

error: Content is protected !!