Author Picture

বিতর্কের তুঙ্গে ‘পিস ক্রাইস্ট’

সুদীপ্ত সালাম

যে আলোকচিত্রকর্মের কথা বলছি, সেই ছবিটি ১৯৯৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার ‘ন্যাশনাল গ্যালারি অব ভিক্টোরিয়া’য় প্রদর্শিত হলে স্থানীয় ক্যাথলিক খ্রিস্টান সম্প্রদায় সুপ্রিম কোর্টে আপিল করে— যাতে ছবিটিকে নিষিদ্ধ করা হয়। কিন্তু তাদের আর্জি না মঞ্জুর করেন আদালত। ছবিটির সমর্থকেরা সব সময়ই বলে আসছেন, ছবিটিকে প্রদর্শিত হতে না দেয়া মানে শৈল্পিক ও বাক্ স্বাধীনতার পরিপন্থী। তুমুল বিতর্কিত হওয়া সত্ত্বেও, চার্চের আপত্তি থাকার পরেও— এখন পর্যন্ত বহাল তবিয়তে আছে আলোকচিত্রকর্মটি। বলছি, মার্কিন দৃশ্যশিল্পী আন্দ্রেস সেরানোর ১৯৮৭ সালে করা ‘পিস ক্রাইস্ট’ শিরোনামের কনসেপচুয়াল আলোকচিত্রকর্মের কথা। যা আশি ও নব্বইয়ের দশকের অন্যতম প্রধান সাংস্কৃতিক যুদ্ধের সূত্রপাত করেছিলো।

১. ফ্রান্সে হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ ‘পিস ক্রাইস্ট’ ।।   ২. মার্কিন দৃশ্যশিল্পী আন্দ্রেস সেরানো

তিনি একটি ছোট কাচের বাক্সে কাঠ ও প্লাস্টিকের তৈরি ক্রুশবিদ্ধ যিশুর প্রতিকৃতি স্থাপন করেন এবং বাক্সটি নিজের মূত্র দিয়ে ভর্তি করেন। তারপর মূত্রে নিমজ্জিত মূর্তিটির ছবি তোলেন। গাঢ় কমলা রঙের আভা ৬০ ইঞ্চি বাই ৪০ ইঞ্চির ছবিটিতে।
প্রথম প্রদর্শিত হয় নিউইয়র্কের ‘স্টাক্স গ্যালারি’তে—১৯৮৭ সালে। তখন কেউ ছবিটির বিরোধিতা করেনি। গোল বাঁধলো— ১৯৮৯ সালে যখন ভার্জিনিয়ায় এটি প্রদর্শিত হলো। তখন থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত আলোচনায় ছবিটি। এমনকি মার্কিন কংগ্রেসও ছবিটির বিরুদ্ধে উঠে-পড়ে লেগেছিলো। কিন্তু বিতর্কের মধ্যেই শিল্পকর্মটি জিতে নেয় যুক্তরাষ্ট্রের সাউথইস্টার্ন সেন্টার ফর কনটেম্পোরারি আর্ট-এর ‘অ্যাওয়ার্ডস ইন দ্য ভিজ্যুয়াল আর্ট’। পিস ক্রাইস্টের বিরুদ্ধে প্রধান অভিযোগ, ‘এটি ধর্মবিরোধী’। যদিও সেরানোর দাবি, ছবিটি এতো বিতর্কের জন্ম দেবে তা তিনি জানতেন না। তিনি আরো বলেছেন, আপত্তিকর বা ধর্মবিরোধী কোনো শিল্পকর্ম তৈরি করা তার উদ্দেশ্য ছিল না। নিজেকে ক্যাথলিক এবং যিশুর অনুসারী হিসেবেও তিনি দাবি করেন।

ছবিটির মাধ্যমে সেরানো দেখাতে চেয়েছেন, কিভাবে যিশু মারা গেলেন। যিশুর শরীর থেকে শুধু রক্তই বের হয়নি—মল-মূত্রও বেরিয়েছিল। তিনি মনে করেন, ক্রুশবিদ্ধ হওয়ার ভয়াবহতাকে তুলে ধরেছে বলেই হয়তো পিস ক্রাইস্ট অনেককে ব্যথিত করেছে। বিখ্যাত মার্কিন শিল্পসমালোচক লুসি আর লিপার্ডের মতে, ‘এটি একটি রহস্যে ঘেরা সুন্দর আলোকচিত্রকর্ম।’ টাইম ম্যাগাজিনের সবর্কালের সবচেয়ে প্রভাবশালী ১০০ আলোকচিত্রকর্মের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে সেরানোর ‘পিস ক্রাইস্ট’।
এমন শিল্পকর্মের জন্য সেরানোকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। হুমকি পেয়েছেন পিস ক্রাইস্ট প্রদর্শনীর আয়োজকেরাও। ২০১১ সালে ফ্রান্সেও এই ছবির ওপর হামলা চালানো হয়েছে। এই ছবির বিরোধিতা থামবার নয়। হয়তো চলতেই থাকবে— যতদিন পর্যন্ত ছবিটির একটি কপিও অবশিষ্ট থাকবে।

আরো পড়তে পারেন

‘দ্য গ্রেট পিকচার’ তৈরির ইতিহাস

গ্যালারিতে ৩২ ইঞ্চি আকারের প্রিন্ট আলোকচিত্রকর্ম দেখে আমরা অভ্যস্ত। সে ছবিই যথেষ্ট বড় মনে হয়। আর চোখের সামনে যদি ৩২ ইঞ্চির পরিবর্তে ১০৭.৫ ফুট x ৩১.৫ ফুট আকারের ছবি হাজির হয় তখন? স্বপ্ন মনে হবে। কিন্তু এই স্বপ্নের মতো ঘটনাটি কিন্তু সত্যিই ঘটেছিল। এতো বিশাল আকারের একটি আলোকচিত্রকর্ম সত্যিই তৈরি করা হয়েছিল— একটি পিনহোল ক্যামেরার….

তুমুল জনপ্রিয়—‘গেরিলারো হিরোইকো’

চে গুয়েভারা মানেই আগুন, আন্দোলন, সংগ্রাম, প্রতিবাদ, বিপ্লব ও বিদ্রোহ। পৃথিবীর যে প্রান্তেই হোক, বিদ্রোহের প্রতীক হিসেবে এখনো জ্বলজ্বলে বিপ্লবী আর্নেস্ট চে গুয়েভারা। আর চে’র প্রতিচ্ছবি মানেই কিউবার আলোকচিত্রী আলবার্তো কোর্দার তোলা তুমুল জনপ্রিয় পোরট্রেট—‘গেরিলারো হিরোইকো’ (বীর গেরিলা যোদ্ধা)। চে’র কথা মনে আসতেই প্রথমে এই ছবিটিই চোখের সামনে ভেসে ওঠে। জ্বলজ্বলে চোখ, যেন ভবিষ্যেতর দিকে….

আলোকচিত্রের ব্যাকগ্রাউন্ড (আট)

একজন আলোকচিত্রী তার পুরো জীবনে লাখ লাখ ছবি তোলেন। অনেকে সেই লাখ লাখ ছবি থেকে নিজের দশটি সেরা ছবি বের করতেও বিপাকে পড়েন। আবার কেউ কেউ এমনও আছেন—যিনি পুরো পৃথিবীজুড়ে বিখ্যাত হয়েছেন কেবল একটি ছবি দিয়ে। যেমন কেনেথ জারেক। তার জন্ম ১৯৬৩ সালে। তিনি একাধারে একজন মার্কিন ফটোসাংবাদিক, লেখক ও সম্পাদক। রণক্ষেত্রের সংবাদ সংগ্রহের জন্য….

error: Content is protected !!