আলোকচিত্রের ব্যাকগ্রাউন্ড (দুই)

সুদীপ্ত সালাম

মানব-ইতিহাসের বর্বরোচিত ঘটনার দিন ২০১১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর। বিশ্ব-ইতিহাসে এই ঘটনার তুলনা হয় না। ঘটনাটি ১১ সেপ্টেম্বরের হামলা বা ৯/১১ নামে পরিচিত। এই দিন সকালে জঙ্গিরা যুক্তরাষ্ট্রের উপর সিরিজ হামলা চালায়। যাত্রীবাহী চারটি বিমান উড়িয়ে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে বিধ্বস্ত করা হয়। বড় অাঘাতটি হানা হয় নিউইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের টুইন টাওয়ারে। সিরিজ আক্রমণে ২ হাজার ৯৯৭ জন নিহত এবং ৬ হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হয়।
শুরু থেকেই টুইন টাওয়ারের হামলার ঘটনাটি ক্যামেরাবন্দি করছেন আলোকচিত্রী স্টিভ সায়মন। ধ্বংসস্তূপ নিয়ে প্রায় তিন মাস কাজ করেন তিনি। তবে ধ্বংসস্তূপ তার কাজের কেন্দ্রবিন্দু ছিল না। ধ্বংসস্তূপকে ঘিরে নিহত-আহতদের স্বজন এবং সমব্যথীদের যন্ত্রণা, আত্মশক্তি ও অনুপ্রেরণাকে তিনি ফ্রেমবন্দি করেছিলেন।


সায়মন ভাবলেন, ছবিগুলো দিয়ে একটি বই করবেন। বইয়ের একটি ডামিও তৈরি করলেন। কিন্তু মাসের পর মাস চলে যায় কোনো প্রকাশক রাজি হয় না। তখন তিনি ভাবলেন, সুজান সনটাগকে দিয়ে বইয়ের একটি ভূমিকা লেখাতে পারলে ভালো হয়। সুজান সনটাগ ছিলেন অন্যতম প্রভাবশালী শিল্প সমালোচক, দার্শনিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা। বিখ্যাত ‘অন ফটোগ্রাফি’র রচয়িতা। সায়মনের বিশ্বাস, যদি সনটাগ ভূমিকা লিখে দেন তাহলে বইটির জন্য প্রকাশক পাওয়া সহজ হবে। রাল্ফ গার্সিয়া নামের একজনের মাধ্যমে বইয়ের ডামির একটি কপি পাঠানো হলো সনটাগের কাছে। তারপর সনটাগের সহকারী সায়মনকে ফোন করে জানান, বইটি দেখতে সনটাগের কয়েক মাস লেগে যাবে। কেননা সনটাগের কাছে বছরে এমন প্রায় দেড় শ অনুরোধ আসে। সায়মন অপেক্ষা করতে শুরু করলেন।
মাসের পর মাস চলে যায়—কোনো খবর নেই। কেউ সায়মনকে আর কিছু জানায় না। তবে একদিন এন্ডি লিভিন নামের এক আলোকচিত্রী ফোন করেন। তিনি জানালেন, সায়মনের ছবিগুলো তিনি দেখেছেন এবং তার ভীষণ ভালো লেগেছে। লিভিনের হাতে কিভাবে সায়মনের ছবি গেলো? এই প্রশ্নের উত্তরে লিভিন জানান, তিনি বইয়ের ডামিটি একজনের কাছ থেকে চার ডলারে কিনেছেন। যিনি লিভিনের কাছে ডামি বইটি বিক্রি করেছেন তিনি কিনেছিলেন আরেকজনের কাছে থেকে। আর সেই আরেকজন ডামিটি পেয়েছেন সুজান সনটাগের ফেলে দেয়া আবর্জনা থেকে!
সায়মনের ভীষণ মন খারাপ হলো। তবে তার মন ভালো করে দিলেন লিভিনই। লিভিন জানালেন, তার বন্ধু বারবারা বরস ৯/১১ হামলার বর্ষপূর্তি উপলক্ষে বিখ্যাত লাইফ ম্যাগাজিনের হয়ে একটি স্মারকগ্রন্থ করতে যাচ্ছেন। সায়মন রাজি থাকলে সেই বইয়ে সায়মনের ছবি যেতে পারে। সায়মন একপায়ে রাজি!
অবশেষে ‘দ্য আমেরিকান স্পিরিট’ শিরোনামের সেই বইটির আট পাতা জুড়ে সায়মনের মন ছুঁয়ে যাওয়া বেশকিছু ছবি ছাপা হলো। সম্মানী হিসেবে পেলেন ৮ হাজার মার্কিন ডলার। এরই ধারাবাহিকতায় সেই ডামি বইটি কানাডার একটি প্রকাশনা সংস্থা থেকে প্রকাশিত হয়, ‘এমটি স্কাই: দ্য পিলগ্রিমেজ টু গ্রাউন্ড জিরো’ শিরোনামে। শুধু তাই নয়, সায়মনের তোলা গ্রাউন্ড জিরোর ছবিগুলো থেকে বেশকিছু প্রিন্ট কপি কিনে নেয় নাইন/ ইলাভেন মেমোরিয়াল মিউজিয়াম। তারপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি স্টিভ সায়মনকে।

আরো পড়তে পারেন

আলোকচিত্রের ব্যাকগ্রাউন্ড (এক)

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার ইও জিমা যুদ্ধটি বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। জাপানের ইও জিমা দ্বীপে জাপানি ও মার্কিন সেনাদের মধ্যে যুদ্ধটি চলে ১৯৪৫ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত। এই রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে মার্কিন বাহিনীর প্রায় ৭ সাত হাজার এবং জাপানি বাহিনীর ১৮ হাজারেও বেশি সেনা নিহত হয়। যুদ্ধ শেষ হওয়ার আগেই ২৩ ফেব্রুয়ারি, দ্বীপের সুরিবাচি….

কিরণের অদম্য বারো

শিল্পীর শিল্পকর্মকে বুঝতে হলে শিল্পীকেও বুঝা চাই। শিল্পীর দর্শন, চরিত্র ও শিক্ষার প্রতিফলন পড়ে তার কর্মে। যদি প্রতিফলিত না হয় তাহলে সে শিল্পকর্ম মেকি ও ক্ষণস্থায়ী। অবনীন্দ্রনাথ বলেছেন, ‘আয়নাতে যেমন নিজের চেহারা তেমনি মনের দর্পণেও আমরা প্রত্যেকে নিজের মনোমতোকে সুন্দর দেখি। কারু কাছ থেকে ধার-করা আয়না এনে যে আমরা সুন্দরকে দেখতে পাব তার উপায় নেই।’….

গেইলের আলোকচিত্রিক সহমর্মিতা

‘দ্য ওয়াল এন্ড দ্য ফিয়ার’ (Le mur et la peur) বেলজিয়ামের আলোকচিত্রী গেইল তুরিনের ৬ষ্ঠ ফটোবুক। বইটিতে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের সংকট ও জীবন নিয়ে গেইলের তোলা ৬২টি আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে, যেগুলো ২০১২ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে তোলা। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের দুদিক থেকেই গেইল ছবি তুলেছেন। আলোকচিত্রীর প্রত্যেকটি বই-প্রকল্প একটি আরেকটি থেকে ভিন্ন। কখনো তিনি কাবুলের যুবাদের নিয়ে….